লাদাখে লালফৌজের ছাউনি, ফের ধরা পড়ল উপগ্রহ চিত্রে

354
এর আগে প্রকাশ্যে আসা উপগ্রহ চিত্র।

নয়াদিল্লি: পূর্ব লাদাখে ভারত-চিন সীমান্তে চিনা ফৌজের গতিবিধি সম্পর্কে অনেকটাই নিশ্চিত কেন্দ্র।শুক্রবার উপগ্রহ মারফত পাওয়া প্ল্যানেট ল্যাবসের হাই-রেজোলিউশনের বেশকিছু ছবি ফের প্রকাশ্যে এসেছে। সেগুলি থেকে এটা স্পষ্ট যে, ভারতীয় সেনাবাহিনীর উপস্থিতির পরোয়া না করে লাদাখে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর দখলদারি কায়েম করতে চলেছে চিনা সেনা। সরকারি সূত্রের খবর, কেন্দ্রের তরফে ন্যাশনাল টেকনিক্যাল রিসার্চ অর্গানাইজেশন (এনটিআরও) কে লাদাখের উপগ্রহ চিত্রগুলি বিশ্লেষণের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

ওই এলাকায় চিনের সাঁজোয় গাড়ি, তাঁবু এবং নৌকার ছবি উপগ্রহ চিত্রে ধরা পড়েছে। চিনা বাহিনীর তাঁবুর অবস্থান ও অন্য সাজসজ্জা থেকে অনুমান, তারা ওই এলাকাগুলিতে দখলদারি কায়েম করেছে। এমনটাই মনে করছেন উপগ্রহ চিত্র বিশেষজ্ঞ অবসরপ্রাপ্ত কর্ণেল বিনায়ক ভাট।

- Advertisement -

এদিকে, লাদাখের তিনটি অঞ্চলে গত তিন দিনে চিনা সেনার উপস্থিতি উল্লেখযোগ্যভাবে কমেছে বলে কেন্দ্রের একটি সূত্রের তরফে জানানো হয়েছে। এক উচ্চপদস্থ সরকারি আধিকারিককে উদ্ধৃত করে শুক্রবার প্রকাশিত একটি খবরে বলা হয়েছে, পূর্ব লাদাখে সঙ্ঘাতের তিনটি ক্ষেত্র থেকে বেশ কিছু সেনা সরিয়েছে চিন। যদিও তাদের নির্মাণ এবং আধা-স্থায়ী কাঠামোগুলি এখনও রয়ে গিয়েছে। সেখানে রয়েছে কিছু চিনা সেনাও।

তবে গালওয়ান উপত্যকার পাশাপাশি গোগরা হট স্প্রিং এবং প্যাংগং লেকের কাছে ফিঙ্গার এরিয়ায় পিপলস লিবারেশন আর্মির সংখ্যা কমেছে বলে ওই আধিকারিক জানিয়েছেন।