পূর্ব রেলের আসানসোল ডিভিশনে ৩ মেগাওয়াটের সৌর বিদ্যুত প্রকল্পের পরিকল্পনা

180

আসানসোল: পূর্ব রেলের আসানসোল ডিভিশনে ৩ মেগাওয়াটের একটি সৌর শক্তির বিদ্যুৎ প্রকল্পের পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। আগামীদিনে এই প্রকল্পের মাধ্যমে আসানসোল ডিভিশনের ডিআরএম অফিস, আসানসোল রেল স্টেশন ভবন, আসানসোল রেল ডিভিশনাল হাসপাতাল, মেমু শেড ও লোকো ট্রেনিং সেন্টার ও হোস্টেলে সৌর বিদ্যুত সরবরাহ করা হবে। পরে রেলের কলোনি গুলিতেও সৌরশক্তির মাধ্যমে বিদ্যুৎ সরবরাহ শুরু হবে। আর এর জন্য রেল মন্ত্রক আসানসোল ডিভিশনে ৩ মেগাওয়াটের সৌরশক্তি প্রকল্পের অনুমোদনও দিয়েছে। সৌর বিদ্যুতের উৎপাদন খরচ কম হওয়ার ফলে রেলের বিশেষ করে আসানসোল ডিভিশনের বিদ্যুত ব্যবহারে যে পরিমান টাকা খরচ হয়, তা অনেক কমবে। বিরাট অংকের টাকাও এই বিদ্যুৎ ব্যবহারে সাশ্রয় হবে।

এই ডিভিশনের ডিভিশনাল রেলওয়ে ম্যানেজার সুমিত সরকার বলেন,  ‘আগামী ছয় মাসের মধ্যেই ৩ মেগাওয়াটের মধ্যে প্রথম পর্যায়ে ১ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য পরিকাঠামো তৈরীর কাজ শেষ হয়ে যাবে।‘ তিনি আরও বলেন, ‘আসানসোল রেল স্টেশন, ডিআরএম অফিস, আসানসোলের ডিভিশনাল হাসপাতালে প্রথম পর্যায়ে সৌরশক্তি প্যানেল ভবনের ছাদে লাগানো হবে। এর জন্য কোনও বিনিয়োগ করতে হবে না।‘

- Advertisement -

ডিআরএম বলেন, ‘আমরা বর্তমানে ৭ টাকার বেশি দাম দিয়ে প্রতি ইউনিট বিদ্যুৎ কিনে থাকি। এই সংস্থাটি আমাদেরকে ৪ টাকা ১৫ পয়সা আমাদের বিদ্যুৎ সরবরাহ করবে। এই তিন মেগাওয়াট বিদ্যুৎ পেয়ে গেলে ডিআরএম অফিস, রেল স্টেশন, রেল হাসপাতাল ও গোটা কলোনিতে সৌর বিদ্যুৎ সরবরাহ সম্ভব হবে। আর এতে ইউনিট পিছু তিন টাকার বেশি করে আমাদের সাশ্রয় হবে। অর্থাৎ বিপুল পরিমাণে টাকা বেঁচে যাবে রেলের। আগামী দিনের অন্যান্য রেলস্টেশন এভাবেই সৌরশক্তি ব্যবহারের ভাবনাচিন্তা আমরা শুরু করেছি।‘

তিনি আরও বলেন, ‘এটি রেলমন্ত্রকের একটি প্রকল্প। পূর্ব রেলের আসানসোল ডিভিশনের আসানসোলকে এই কাজের জন্য চিহ্নিত করেছে রেল। সৌরশক্তি বিদ্যুৎ ব্যবহারে আমরা অনেক বেশি পরিবেশবান্ধব হয়ে উঠব বলেও তিনি জানান।‘

আসানসোল ডিভিশনের এক উচ্চপদস্থ আধিকারিক বলেন, ‘আমরা একাধিক সংস্থার কাছ থেকেই বিদ্যুৎ কিনে থাকি। মাঝে মধ্যে বিদ্যুৎ বিভ্রাটও হয় নানা কারণে। সর্বোপরি এই তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র গুলিতে কয়লার ব্যবহার হয়। সেখান থেকে দূষণ ছড়ায়। আগামীদিনে সরকার ধীরে ধীরে সর্বত্র সৌর বিদ্যুৎ উৎপাদন ও তার ব্যবহারের উপরে জোর দিচ্ছে পরিবেশের ভারসাম্য বজায় রাখার জন্য। ভারতীয় রেল দেশজুড়ে এই বিষয়ে অগ্রণী ভূমিকাও পালন করছে। তারমধ্যে পূর্ব রেলের আসানসোল ডিভিশন হল অন্যতম।‘