খড়গপুর আইআইটি-র সমাবর্তনে কবিগুরুকে স্মরণ, স্বাধীনতা সংগ্রামীদের প্রশংসা প্রধানমন্ত্রীর

99

কলকাতা: খড়গপুর আইআইটি-র সমাবর্তনে ভার্চুয়ালি যোগ দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। মঙ্গলবার এই অনুষ্ঠানে পড়ুয়াদের উদ্বুদ্ধ করতে কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রসঙ্গ টেনে পড়ুয়াদের উদ্দেশে তাঁর বক্তব্য, রাস্তা লম্বা হলেও ধৈর্য্য ধরে আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে এগোতে হবে। ব্যর্থতাকে সদর্থকভাবে দেখতে হবে। আত্মত্যাগ হল সবচেয়ে বড় শক্তি। এদিন রবি ঠাকুরের পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যে উঠে এসেছে নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু, খড়গপুরের স্বাধীনতা সংগ্রামীদের অবদানের কথা। তিনি জানান, স্বাধীনতা সংগ্রামে বাংলার মানুষের অবদান মনে রাখার মতো। এখানকার ভূমি আন্দোলনকারীদের ভূমিকা ভোলার নয়। তাঁদের আত্মত্যাগ আইআইটির পড়ুয়াদের অনুপ্রেরণা জোগাবে। পাশাপাশি খড়গপুর আইআইটি-র পড়ুয়াদের ভূয়সী প্রশংসা করে প্রধানমন্ত্রী জানান, বিশ্বের মানচিত্রে ভারতকে তুলে ধরতে এই প্রতিষ্ঠানের অগ্রণী ভূমিকা রয়েছে। ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের পড়ুয়াদের কাছেই ভারতের যাবতীয় সমস্যার সমাধান রয়েছে।

এদিন শ্যামপ্রসাদ মুখোপাধ্যায় নামাঙ্কিত ইনস্টিটিউট অফ মেডিকেল রিসার্চ অ্যান্ড সায়েন্সের উদ্বোধন করেন নরেন্দ্র মোদি। শিক্ষা মন্ত্রকের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে এই হাসপাতাল গড়ে তুলেছে আইআইটি খড়গপুর। ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষতে এই প্রতিষ্ঠানে এমবিবিএস কোর্স চালুর সম্ভাবনা রয়েছে। এদিকে বিধানসভা নির্বাচনের আগে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যে ফের একবার বাংলার ইতিহাস উঠে আসাকে তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল।

- Advertisement -