প্রত্যাশার চাপ না নেওয়ার পরামর্শ মোদির

নয়াদিল্লি : দরজায় কড়া নাড়ছে অলিম্পিক। পদকজয়ে স্বপ্ন চোখে নিয়ে টোকিও-র উদ্দেশে উড়ে যাবেন ভারতীয় অ্যাথলিটরা। তার আগে মেরি কম, পিভি সিন্ধু সহ টোকিওগামী ১২৬ জন ভারতীয় প্রতিযোগীর সঙ্গে ভার্চুয়াল আলাপচারিতায় যোগ দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

ভারতীয় অ্যাথলিটদের সাফল্য কামনা করে শুভেচ্ছা জানানোর পাশাপাশি নানা বিষয়ে ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা তাদের সামনে তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী। ভিডিও কনফারেন্সে অ্যাথলিটদের উদ্দেশে মোদি বলেন, প্রত্যাশা নিয়ে মাথা ঘামিও না। নিজের সেরাটুকু দাও। সাফল্য আসবেই। প্রধানমন্ত্রী ও অ্যাথলিটদের ভার্চুয়াল আলাপচারিতা শুরু করেন কেন্দ্রীয় ক্রীড়ামন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুর, প্রতিমন্ত্রী নিশীথ প্রামাণিক। ছিলেন ক্রীড়ামন্ত্রক ছেড়ে সদ্য আইনমন্ত্রকের দায়িত্ব নেওয়া কিরেন রিজিজুও। সঙ্গে ইন্ডিয়ান অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের (আইওএ) সভাপতি নারিন্দার বাত্রা।

- Advertisement -

টোকিও অলিম্পিকে ভারতের বিপুল পদক জয়ের যে সম্ভাবনা দেখছেন তা জানাতে ভোলেননি প্রধানমন্ত্রী। সঙ্গে টেনেছেন মন কি বাতের প্রসঙ্গ। মোদি বলেছেন, মন কি বাতে আমি এর আগে দীপিকা কুমারি ও অন্যান্য অ্যাথলিটদের উদাহরণ দিয়েছিলাম। দীপিকা এখন বিশ্বের একনম্বর। গোটা বিশ্ব তোমার লড়াইয়ে কথা জানতে চায়। আমি শুনেছি, ছোটবেলায় গাছের আমকে নিশানা করে তুমি প্র‌্যাকটিস করতে। দীপিকা গোটা দেশের কাছে অনুপ্রেরণা। সঙ্গে দীপিকা কুমারির উদ্দেশে বলেছেন, যখন অলিম্পিকের মতো বড় মঞ্চে খেলতে নামবে তোমার কাছ থেকে পদক জয়ের প্রত্যাশা থাকবে, সেটাই স্বাভাবিক। গোটা ভারত আশাবাদী, তুমি টোকিও গেমসে দেশকে গর্বিত করবে।

জ্যাভলিন তারকা নীরজ চোপড়ার সঙ্গে আলাপচারিতায় প্রধানমন্ত্রীর পরামর্শ, প্রত্যাশা থাকবেই। তা নিয়ে মাথা ঘামিও না। শুধু নিজের লক্ষ্যে অবিচল থাকো। টোকিও-র মঞ্চ থেকে পদক নিয়ে ফেরার ব্যাপারে আত্মবিশ্বাসী নীরজ নিজেও। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথোপকথনে ছিলেন টেনিস তারকা সানিয়া মির্জা, টেবিল টেনিসের মণিকা বাত্রা, ট্র্যাক অ্যান্ড ফিল্ডের দ্যুতি চাঁদ সহ আরও অনেকেই। টোকিও অলিম্পিকে খেলতে নামার আগে প্রধানমন্ত্রীর বার্তা ভারতীয় অ্যাথলিট উজ্জীবিত করবে বলে জানান আইওএ-র সভাপতি নারিন্দার বাত্রা।