স্বাধীনতা দিবসে লালকেল্লায় ডাক অলিম্পিয়ানদের

ছবি: সংগৃহীত।

নয়াদিল্লি : স্বপ্নভঙ্গের মধ্যেও আশার আলো দেখছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

আর পাঁচজন ভারতীয়ের মতোই সকালবেলায় চোখ রেখেছিলেন ভারত-বেলজিয়াম ম্যাচের দিকে। মনদীপ, হরমনপ্রীত সিংয়ের গোলের পর আশায় চকচক করে উঠেছিল তাঁর চোখমুখ। কিন্তু বেলজিয়ামের কাছে সেমিফাইনাল হারতেই সব শেষ। অধরাই থাকল ৪১ বছর পর অলিম্পিকের ফাইনাল খেলা।

- Advertisement -

হারের যন্ত্রণায় মূহ্যমান মনপ্রীতদের সান্ত্বনা দিতে ম্যাচের পরেই ফোন করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী। দলের লড়াকু মনোভাবের প্রশংসাও করেন তিনি। পরে টুইটে নরেন্দ্র মোদি বলেন, জয়-পরাজয় জীবনের অঙ্গ। আমাদের পুরুষ হকি দল নিজেদের সেরাটা দিয়ে চেষ্টা করেছে। সঙ্গে যোগ করেছেন, পরের ম্যাচে দল ভালো খেলুক, সেই কামনা করি। ভবিষ্যতেও সাফল্য আসুক ভারতীয় হকি দলের হাত ধরে। গোটা দেশ আমাদের হকি দল নিয়ে গর্ববোধ করে। পাশাপাশি ১৫ অগাস্ট স্বাধীনতা দিবসে লালকেল্লায় অলিম্পিকে অংশগ্রহণকারী প্রতিযোগীদের বিশেষ অতিথি হিসেবে আসার আমন্ত্রণ জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। সূত্রের খবর, সেইদিনই প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে মীরাবাই চানু, পিভি সিন্ধু সহ টোকিও অলিম্পিকে অংশগ্রহণকারী সমস্ত অ্যাথলিটকে।

অন্যদিকে, মঙ্গলবার ফাইনালে ওঠার সুযোগ ছিল ভারতীয় পুরুষ হকির দলের সামনে। কিন্তু বেলজিয়ামের কাছে হার সেই স্বপ্নে জল ঢেলে দিয়েছে। তবে স্বপ্ন বাঁচিয়ে রেখেছেন রানি রামপালরা। বুধবার শক্তিশালী আর্জেন্টিনার বিরুদ্ধে শেষ চারে নামছে ভারতীয় হকির মেয়েরা। জিতলে ইতিহাস রচনা করবেন রানিরা। জায়গা করে নেবেন প্রথমবার অলিম্পিকের ফাইনালে। তাদের হয়ে গলা ফাটাতে তৈরি মনপ্রীত অ্যান্ড কোং। ভারতের পুরুষ হকি টিমের অধিনায়ক বলেছেন, অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে অনবদ্য খেলেছে ভারতীয় দল। সেমিফাইনালেও সেই পারফরমেন্স তুলে ধরুক রানি রামপালরা। আমি নিশ্চিত ভারতীয় মহিলা দল জয় ছিনিয়ে আনবে।