নয়াদিল্লি, ৩০ মেঃ  আর মাত্র কয়েকঘণ্টার প্রতীক্ষা৷ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাতটায় দ্বিতীয়বারের জন্য প্রধানমন্ত্রী হিসাবে শপথ নিতে চলেছেন নরেন্দ্র মোদি। আর সেই অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে রাষ্ট্রপতি ভবনে চলছে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি। অন্তত আট হাজার অতিথির উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে এদিনে অনুষ্ঠানে। আর দেশবিদেশের অতিথিদের আপ্যায়নে যাতে কোনোরকম ত্রুটি না থাকে, তার জন্য রাষ্ট্রপতি ভবনের হেঁশেলেও ব্যস্ততা তুঙ্গে।

সন্ধ্যায় মোদিকে শপথবাক্য পাঠ করাবেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। তার আগে বৃহস্পতিবার সকালে রাজঘাটে মহাত্মা গান্ধীর স্মারকে শ্রদ্ধা জানান মোদি। এর পর তিনি শ্রদ্ধা জানান প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী অটলবিহারী বাজপেয়ীর স্মারকে। এর পর ইন্ডিয়া গেটের কাছে জাতীয় শহিদ স্মারকে শ্রদ্ধা জানান মোদি। তাঁর সঙ্গে ছিলেন বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ, রবিশঙ্কর প্রসাদ, মানেকা গান্ধী, স্মৃতি ইরানি, জেপি নড্ডা সহ বিজেপির অন্য নেতারা। মোদির শপথ অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত হয়েছেন বিমস্টেক দেশের রাষ্ট্রপ্রধানরা। উপস্থিত থাকবেন বিরোধী শিবিরের প্রধান তথা ইউপিএ চেয়ারপার্সন সনিয়া গাঁধী এবং কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীকে। তা ছাড়া অভ্যাগতদের তালিকায় থাকছেন বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ, মরিশাসের প্রধানমন্ত্রী প্রবীন্দকুমার জুগনৌথ, ভুটানের প্রধানমন্ত্রী লোতে শেরিং, থাইল্যান্ডের রাজার প্রতিনিধি, মায়ানমারের রাষ্ট্রপতি, শ্রীলঙ্কার রাষ্ট্রপতি মৈত্রীপালা সিরিসেনা, নেপালের প্রধানমন্ত্রী কেপি শর্মা ওলি। প্রথা অনুযায়ী রাষ্ট্রপতি ভবনের দরবার হলেই শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠান হত। ২০১৪ সালে সেই রীতি ভেঙে অনুষ্ঠান হচ্ছে ভবনের বাইরের লনে। অনুষ্ঠান শেষে ব্যাঙ্কোয়েট হলে থাকছে বিশেষ নৈশভোজের ব্যবস্থা। এ বারের নৈশভোজের বিশেষ আকর্ষণ ‘ডাল রাইসিনা’। রাষ্ট্রপতি ভবনে অনুষ্ঠানের কথা মাথায় রেখেই তৈরি হচ্ছে এই পদ।