বমাল গ্রেপ্তার ১০ দুষ্কৃতী, পুরস্কৃত হবেন ১০ পুলিশকর্মী

46

কিশনগঞ্জ: লুটের সামগ্রী সহ ১০ দুষ্কৃতীকে গ্রেপ্তার করল কিশনগঞ্জ জেলা পুলিশের টাস্কফোর্স। ধৃতরা আরারিয়া জেলার বাসিন্দা মহম্মদ মসুদ আলম, মহম্মদ সাবির, মহম্মদ মুসলিম, প্ৰদীপ চৌধুরী, রাজু শাহ, মহম্মদ নওশাদ এবং টেরাগছের বাসিন্দা মহম্মদ মেহবুব আলম, রতন কুমার শর্মা, বিকাশ সাহা ও মহম্মদ আফককে। তাদের হেপাজত থেকে বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে একটি আগ্নেয়াস্ত্র, এক রাউন্ড তাজা কার্তুজ, ৯টি মোবাইল এবং তিনটি বাইক। এছাড়াও বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে প্রায় পাঁচ কেজি রুপোর অলঙ্কার এবং লুটের ৩৪ হাজার ৩২৮ টাকা। বৃহস্পতিবার ধৃতদের কিশনগঞ্জ জেলা আদালতে পেশ করা হলে বিচারক ১৪দিনের বিচার বিভাগীয় হেপাজতে পাঠানোর নির্দেষ দিয়েছেন।

কিশনগঞ্জের পুলিশ সুপার কুমার আশীষ এক সাংবাদিক সম্মেলন উপস্থিত হয়ে জানান, ৯ নভেম্বর কিশনগঞ্জ সদর থানার প্রেমপুল সংলগ্ন এলাকায় রান্নার গ্যাস সরবরাহকারী সংস্থার কর্মীর থেকে প্রায় দেড় লক্ষ টাকা ছিনতাই করে পালিয়েছিল একদল দুষ্কৃতী। সেসময় ধস্তাধস্তিতে আগ্নেয়াস্ত্র ফেলে পালিয়ে যায় তারা। সেই রাতেই বাহাদুরগঞ্জ থানা এলাকায় এক অলঙ্কার ব্যবসায়ীকে আগ্নেয়াস্ত্র দেখিয়ে প্রায় পাঁচ কেজি রুপোর অলঙ্কার সহ নগদ অর্থ নিয়ে টাকা নিয়ে চম্পট দেয় দুষ্কৃতীরা। এরপরই তদন্ত শুরু হয়। শুরুতেই বাছাই করা অফিসারদের নিয়ে গঠন করা হয় টাস্কফোর্স। এরপরই বমাল গ্রেপ্তার করা হয় ১০ দুষ্কৃতীকে। অন্যদিকে, দক্ষতার পরিচয় দিয়ে দ্রুত ছিনতাইয়ের ঘটনায় ইতি টানায় টাস্কফোর্সের আটজন পুলিশ আধিকারিক এবং দুইজন পুলিশ কর্মীকে পুরস্কৃত করা হবে।

- Advertisement -