রাজনৈতিক হিংসা এড়াতে শান্তি বৈঠকে পুলিশ

57

বৈষ্ণবনগর: ভোট পর্ব মিটতেই রাজ্যের একাধিক জেলা তেতে উঠেছে রাজনৈতিক হিংসায়। ঘটনায় এক অপরের দিকে আঙ্গুল তুলছে তৃণমূল-বিজেপি। এমতবস্থায় এলাকার শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখতে তৃণমূল-বিজেপির নেতাদের উপস্থিতিতে শান্তি বৈঠকে বসল বৈষ্ণবনগর থানার পুলিশ। দীর্ঘ আলোচনা শেষে পুলিশের তরফে জানানো হয় বৈঠক ফলপ্রসু। বৈষ্ণবনগর শান্তিপ্রিয় এলাকা। কেউ অশান্তি ছড়াতে চাইলে তাকে রেয়াত করা হবে না।

ফল প্রকাশের পর থেকেই যেন উত্তোরত্তর বেড়ে চলেছে ভোট পরবর্তী হিংসা। এমতবস্থায় বৈষ্ণবনগরেও যে কোনও প্রকার হিংসা এড়াতে তড়িঘড়ি শান্তি বৈঠক ডাকা হয় বলেই খবর। জানা গিয়েছে, ১৬-র বিধানসভা নির্বাচনে বৈষ্ণবনগর বিধানসভা আসন দখল করে বিজেপি। যদিও একুশেোর বিদানসবা নির্বাচনে সেই আসন ছিনিয়ে নেয় তৃণমূল। এরপরেই বিজেপির তরফে রি-কাউন্টিং করার আর্জি তুলে ধরা হয় সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্য়মে। এই পরিস্থিতিতে বৈষ্ণবনগরে তৃণমূল-বিজেপি সংঘাতে জড়াতে পারে আশঙ্কা প্রকাশ করে পুলিশ মহল। সেই আশঙ্কা যাতে সত্যি না হয় সেক্ষেত্রে তড়িঘড়ি আই শান্তি বৈঠক বলেই খবর। বৈষ্ণবনগর থানায় আয়োজিত এদিনের বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন বিজেপি নেতা অর্জুন মণ্ডল, তৃণমূল নেতা জান্নাতুল ইসলাম, কংগ্রেস নেতা আকমল হক সহ অন্যান্য নেতৃত্বরা।

- Advertisement -

বৈঠক শেষে বৈষ্ণবনগর থানার আইসি নিম শেরিং ভুটিয়া বলেন, ‘কোথায় কি হচ্ছে দেখে লাভ নেই। বৈষ্ণবনগর শান্তি প্রিয় এলাকা। এখানে কেউ অশান্তি সৃষ্টি করতে চাইলে তাকে রেয়াত করা হবে না। এলাকার শান্তিশৃঙ্খলা বজায় রেখে এবং সৌভ্রাতৃত্ব বজায় রেখে সকলকে বসবাস করতে হবে। কেউ বিদ্বেষ ছড়ানোর চেষ্টা করলে তাকে চিহ্নিত করে আমাদের জানানোর কথা বলা হয়েছে সকলকে। খবর পেতেই যথাপোযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এছাড়াও সার্বিক পরিস্থিতির ওপর নজর রাখা হবে।’