মহিলার মৃতদেহ উদ্ধারে ঘটনায় খুনের মামলা রুজু পুলিশের

117

বর্ধমান: অজ্ঞাত পরিচিত মহিলার মৃতদেহ উদ্ধারের ৪৮ ঘণ্টারপ মধ্য়েই তাঁর পরিচয় জানতে পারল পুলিশ। যদিও সঠিক কি কারণে খুন তা এখনও স্পষ্ট নয়। তবে, তদন্তকারী পুলিশ কর্তাদের বক্তব্য, দ্রুত খুনি ধরা পড়বে। গত রবিবার পূর্ব বর্ধমানের জৌগ্রামের জলেশ্বরতলা এলাকার একটি বাঁশ বাগান এক মহিলার মৃতদেহ উদ্ধার হয়। পুলিশের বক্তব্য অনুসারে ওই মৃতার মুখ থেঁতলানো অবস্থায় ছিল। প্রথমে মৃতার পরিচয় জানা না গেলেও তাঁর কোমরের পুঁটুলিতে থাকা কাগজের টুকরোয় লেখা ফোন নম্বরে সূত্র ধরে মিলল পরিচয়। মৃতা  সুখী মাণ্ডি(৪৭), মেমারি থানার নবস্তা-১ পঞ্চায়েতের পলশা গ্রামের বাসিন্দা ছিলেন তিনি।

পলশা গ্রামের বাসিন্দাদের কথায়, মৃতার স্বামী সাধন মাণ্ডি পেশায় ট্র্যাক্টর চালক। তিনি সাপার পাড়ায় থাকতেন। যদিও তাঁর স্ত্রী পাশের গ্রাম গাঙ্গুয়ায় থাকতেন।  জানা গিয়েছে, মৃতা সাধন মাণ্ডির দ্বিতীয় পক্ষের স্ত্রী। সাধনের প্রথম পক্ষের স্ত্রীর কোনও সন্তান নেই। সুখির দুই ছেলে। একজনের বয়স প্রায় ১৬ বছর। অপর জনের বয়স প্রায় ১৩ বছর। সুখির বড়ছেলে সম্প্রতি নিজের পছন্দের ময়েকে বিয়ে করেছে। তবে সুখি মাণ্ডির অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনায় কারণ এখনও অধরা। যদিও পুলিশের প্রাথমিক অনুমান ওই মহিলাকে খুন করা হয়েছে। ঘটনায় খুনের মামলা রুজু করে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

- Advertisement -

এসডিপিও (বর্ধমান দক্ষিণ) আমিনুল ইসলাম খাঁন জানিয়েছেন, খুনের ঘটনায় জড়িতরা দ্রুত ধরা পড়বে।