আগামী ৭২ ঘণ্টায় রাজনৈতিক নেতাদের কোচবিহারে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা

155

কলকাতা: শীতলকুচি কাণ্ডের পর কড়া পদক্ষেপ করল নির্বাচন কমিশন। আগামী ৭২ ঘণ্টায় রাজনৈতিক নেতাদের কোচবিহারে ঢোকায় নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে কমিশনের তরফে। মুখ্যসচিব, ডিজিকে এই নির্দেশ কার্যকর করার ব্যাপারে বার্তা দিয়েছে কমিশন। এদিকে, রবিবারই শীতলকুচি যাওয়ার কথা রয়েছে তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। কমিশনের নির্দেশের পর তিনি কী পদক্ষেপ করেন সেটাই দেখার। যদিও কমিশনকে তোপ দেগে তৃণমূল সাংসদ সৌগত রায় জানিয়েছেন, মমতাকে আটকাটাতেই এই নির্দেশ জারি করা হয়েছে।

চতুর্থ দফার ভোটে রণক্ষেত্রে পরিণত হয়েছে কোচবিহার জেলার শীতলকুচি। শনিবার কেন্দ্রীয় বাহিনীর গুলিতে শীতলকুচির জোরপাটকি গ্রাম পঞ্চায়েতের ৫/১২৬ নম্বর বুথে ৪ জনের মৃত্যু হয়। মৃত হামিদুল মিয়াঁ, সামিউল হক, মণিরুল হক এবং আমজাদ হোসেন তৃণমূল কর্মী-সমর্থক বলে দাবি ঘাসফুল শিবিরের। ঘটনার প্রতিবাদে সরব হয়েছে তৃণমূল।

- Advertisement -

শনিবার শিলিগুড়িতে সাংবাদিক সম্মেলনে শীতলকুচির ঘটনায় নির্বাচন কমিশনের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলে মুখ্যমন্ত্রী জানান, ক্ষমতায় এলে তিনি শীতলকুচির ঘটনার সিআইডি তদন্ত করাবেন। অন্যদিকে, এদিন শিলিগুড়ির জনসভায় প্রধানমন্ত্রী দাবি করেন, আত্মরক্ষার্থেই বাহিনীকে গুলি চালাতে হয়েছে। সাংবাদিক সম্মেলনে ওই বক্তব্যেরও সমালোচনা করেন মমতা। জানান, সত্যিই কী বাহিনী আক্রান্ত হয়েছে। এর কোনও প্রমাণ নেই।

নিহতদের পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে রবিবারই শিলিগুড়ি থেকে শীতলকুচিতে যাওয়ার কথা রয়েছে মমতার। তার ঠিক আগে কমিশন জানিয়েছে, আগামী ৭২ ঘণ্টায় রাজনৈতিক নেতাদের কোচবিহারে ঢোকায় নিষেধাজ্ঞা জারি থাকবে। কমিশনের নির্দেশের পর তৃণমূল সুপ্রিমো এখন কী পদক্ষেপ করেন, সেদিকেই নজর রাজনৈতিক মহলের।