বীরভূমে রাজনৈতিক হিংসা অব্যাহত, জেলায় আসছে বিজেপির প্রতিনিধি দল

58

সিউড়ি: নির্বাচনি ফলাফল প্রকাশের পর থেকে হিংসা অব্যাহত বীরভূম জেলাজুড়ে। সব ক্ষেত্রেই অভিযোগের তির তৃণমূলের দিকে। যদিও তৃণমূলের তরফে অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে। এই পরিস্থিতিতে বুধবার বিজেপির একটি প্রতিনিধি দল জেলায় আসছে।

জানা গিয়েছে, গণনার পর থেকেই রামপুরহাট বিধানসভার বেলেবাড়ি এলাকায় বেশ কয়েকজন বিজেপির কর্মী-সমর্থকদের হুঁশিয়ারি দেওয়া হচ্ছে। ভেঙে দেওয়া হয়েছে গ্রামের বেশ কয়েকটি টিউবওয়েল। মুরারই বিধানসভার চাতরা গ্রামে এক বিজেপি কর্মীকে প্রাণনাশের হুমকি দেওয়া হয় বলে তৃণমূলের তরফে অভিযোগ। এরপর থেকেই এলাকার চারজন বিজেপি কর্মী গ্রামছাড়া। সিউড়ি বিধানসভার লম্বোদরপুর গ্রামে দুই বিজেপি কর্মীর বাড়িতে বোমাবাজি এবং ভাঙচুর চালানোর অভিযোগ ওঠে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। দুবরাজপুর বিধানসভার গোকরুল গ্রামে তৃণমূল বাহিনীর তাণ্ডব রুখতে লাঠি সোটা নিয়ে পথ অবরোধ করেন স্থানীয়রা। তারা দুবরাজপুর বিধানসভার ৬০ নম্বর জাতীয় সড়ক এবং দুবরাজপুর-খয়রাশোল পথ অবরোধ করে রাখে। পরে পুলিশ গিয়ে নিরাপত্তার আশ্বাস দিলে অবরোধ উঠে যায়।

- Advertisement -

একইভাবে নানুর বিধানসভার অধিকাংশ গ্রামে অত্যাচার চালায় কয়েকজন দুষ্কৃতী। অভিযোগ তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা বিজেপি কর্মী-সমর্থকদের বাড়িতে হামলা চালায়। বাড়ির জিনিসপত্র লুঠপাট করে। কিন্তু কেউই পুলিশে অভিযোগ করার সাহস পাচ্ছেন না। কারণ পুলিশকে ফোনে জানিয়েও সাহায্য মেলেনি। তৃণমূলের জেলা সাধারণ সম্পাদক ত্রিদিব ভট্টাচার্য জানান, বীরভূম শান্ত জায়গা। তবে কোথাও কিছু হয়ে থাকলে প্রশাসন ব্যবস্থা নেবে। হিংসাকে আমরা প্রশ্রয় দেব না। বিজেপির জেলা সভাপতি ধ্রুব সাহা জানান, জেলার সর্বত্র হিংসা চলছে। তাঁরা রাজ্যকে জানিয়েছেন। আগামীকাল রাজ্যের একটি প্রতিনিধি দল জেলায় আসছে। তাঁরা হিংসা কবলিত এলাকা পরিদর্শন করবেন। জেলা প্রশাসনের সঙ্গেও কথা বলবেন।