মুরতুজ আলম, সামসী : প্রয়োজন প্রায় এক কোটি টাকা। কিন্তু সেই টাকার ব্যবস্থা করা সম্ভব নয় স্থানীয় পঞ্চায়েত কর্তৃপক্ষের। ফলে এখনও মেরামত হচ্ছে না হরিশ্চন্দ্রপুর-২ ব্লকের মালিওর-২ পঞ্চায়েতের কাতলামারি গ্রামের বেহাল রাস্তাটি। সংস্কারের অভাবে চলাচলের একেবারে অযোগ্য হয়ে পড়েছে কাঁচা মাটির রাস্তাটি। প্রশাসন থেকে সমস্যা সমাধানে কোনো পদক্ষেপ না করায় ক্ষোভ বাড়ছে এলাকাবাসীর মধ্যে। রাস্তাটি যাতে পাকা করা হয়, তার জন্য আন্দোলনের প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছেন গ্রামবাসীরা।

কাতলামারি গ্রামের বাসিন্দা তুরাব আলি, আবু তাহিররা বলেন, গ্রামের রাস্তাটি বহুদিন ধরে কাঁচা অবস্থায রয়েছে। বৃষ্টির জল সেই রাস্তায় জমলে কাদা তৈরি হয়। জলকাদার মধ্যে দিয়ে যাতায়াত করতে গ্রামবাসীদের দুর্ভোগের অন্ত থাকে না। তাঁরা আরও বলেন, কাতলামারি গ্রামের রাস্তাটি প্রায় দেড় কিমি দীর্ঘ। এলাকায় এই রাস্তার একটা আলাদা গুরুত্ব রয়েছে। পাশের পূর্ব তালসুর, মিটনা, খাড়াগ্রাম প্রভৃতি গ্রামে যেতে এই রাস্তা ব্যবহার করতে হয়। স্বাধীনতার পর দীর্ঘ ৭২ বছর পার হয়েছে। কিন্তু এই রাস্তাটি মেরামত করতে কেউই উদ্যোগী হয়নি। গ্রামের বাসিন্দা আজাহার আলি, তারিক আনোয়ার প্রমুখ বলেন, বর্তমানে রাস্তাটি দিয়ে চলা যায় না। সাইকেল, মোটর সাইকেল তো দুরের কথা, হেঁটে চলাচল করাও দায় হয়ে দাঁড়িয়েছে। প্রতিদিন ওই রাস্তা দিয়ে স্থানীয় স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসার ছাত্রছাত্রীরা যাওয়া আসা করে। কৃষিপ্রধান এলাকার বাসিন্দাদের মাঠের ধান বাড়িতে বা হাটেও নিয়ে যেতে হয় এই রাস্তা দিয়ে। বেহাল রাস্তায় চলে না অ্যাম্বুলেন্স। ফলে হাসপাতালে রোগী নিয়ে যেতে সমস্যা হয়। গ্রামবাসীদের অভিযোগ, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি থেকে শুরু করে বিধায়ক এবং সাংসদকেও বেহাল রাস্তার কথা জানানো হয়েছে। সকলে প্রতিশ্রুতি দিলেও সেই কাজ এখনও হয়নি।

মালিওর-২ গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান তারিনা খাতুন বলেন, কাতলামারি গ্রামের রাস্তাটি পাকা করতে প্রায় এক কোটি টাকা দরকার। কিন্তু সেই টাকার ব্যবস্থা করা পঞ্চায়েতের পক্ষে সম্ভব নয়। বিষয়টি ব্লক ও জেলা প্রশাসনে জানানো হয়েছে। হরিশ্চন্দ্রপুর-২ গ্রাম পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি জুবেদা বিবি বলেন, রাস্তাটি যাতে পাকা করা হয়, তার জন্য জেলাপরিষদে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। স্থানীয় জেলাপরিষদ সদস্যা মার্জিনা খাতুন বলেন, কাতলামারি গ্রামের রাস্তার জন্য প্রায় ২০ লক্ষ টাকার স্কিম ধরা হয়েছে। শীঘ্রই কাজ শুরু হবে।