কোচবিহার : বেশ কয়েকবছর ধরে রাস্তা বেহাল থাকলেও উদাসীন কর্তৃপক্ষ। এবড়োখেবড়ো রাস্তার অধিকাংশ জায়গাতেই নেই পিচের চাদর। বৃষ্টি হলে পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ হয়। বেহাল রাস্তার জেরে নিউ বাণেশ্বরের বাসিন্দাদের নাভিশ্বাস উঠেছে। বাণেশ্বর মন্দিরের কিছুটা দূর থেকেই নাটাবাড়ি যাওয়ার রাস্তার প্রায় ২ কিলোমিটার জুড়ে রাস্তা বেহাল হওয়ায় ক্ষোভের পারদ চড়ছে স্থানীয বাসিন্দাদের। যদিও শীঘ্রই রাস্তা মেরামত হযে যাবে বলে আশ্বাস দিয়েছে গ্রাম পঞ্চায়েত কর্তৃপক্ষ। বাণেশ্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান জীবেন্দ্র দেব সিংহ বলেন, ধাপে ধাপে রাস্তা সংস্কারের কাজ শুরু হয়ে গিয়েছে। এই রাস্তাটিও শীঘ্রই সংস্কার হবে। তখন আর কোনো সমস্যা থাকবে না।

কোচবিহার-২ ব্লকের ঐতিহ্যবাহী বাণেশ্বর মন্দিরে প্রতিদিন দূরদূরান্ত থেকে বহু মানুষ ভিড় করেন। কিন্তু সেই মন্দিরের পাশ দিয়ে নাটাবাড়ি যাওয়ার রাস্তাটির কিছুটা অংশ ভালো থাকলেও তারপর থেকেই শুরু বেহাল অবস্থার। নিউ বাণেশ্বর, খো খো পাড়া, হাতিডোবা, বোকালির মঠের হাজারেরও বেশি মানুষকে সমস্যায় পড়তে হচ্ছে। বেশ কয়েকবছর আগে পিচের রাস্তাটি তৈরি হলেও সংস্কারের অভাবে সেটি এখন মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে। মাঝেমধ্যেই দুর্ঘটনা ঘটছে বলে অভিযোগ স্থানীয়দের। বিপজ্জনকভাবে কাটা পাথর বেরিয়ে থাকায় সমস্যা বাড়ছে আরও। খানাখন্দে ভরতি থাকায় বর্ষায় এই রাস্তার অবস্থা আরও বেহাল হয়ে পড়ে বলে অভিযোগ। শীঘ্রই রাস্তা সংস্কারের দাবি জানিয়েছেন তাঁরা।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, বাণেশ্বরের বাসিন্দারা নাটাবাড়ি, আমবাড়ি এলাকায় যাওয়ার জন্য এই রাস্তাটিই ব্যবহার করে থাকেন। এলাকার বাসিন্দা কাজল সরকার বলেন, কয়েকবছর থেকে রাস্তাটি মেরামত হচ্ছে না। খুব অসুবিধার মধ্য দিয়ে যাতায়াত করতে হয় আমাদের। সংস্কার করা হলে খুব ভালো হয়। পেশায় শিক্ষিকা অনন্যা দত্ত বলেন, এই রাস্তাটির উপর হাজার হাজার মানুষ নির্ভরশীল। রাস্তা বেহাল থাকায় ধুলোও হয় প্রচুর। রাস্তাটি সংস্কার করা হলে সবাই উপকৃত হবেন। আরেক বাসিন্দা সুদেব পাল বলেন, রাস্তার একদিকে বাণেশ্বর মন্দির, আরেকদিকে সিদ্ধেশ্বরী মন্দির। দুটিই রাজ আমলের ঐতিহ্যবাহী মন্দির। প্রতিদিন বহু মানুষ সেখানে যাতায়াত করেন। তাই গুরুত্বপূর্ণ এই রাস্তাটি দ্রুত মেরামত করা প্রয়োজন।