রাজনৈতিক হিংসার জের, বাবাকে বাঁচাতে গিয়ে মৃত্যু ছেলের

98

বর্ধমান: মুখ্যমন্ত্রীর কড়া হুঁশিয়ারির পরেও পূর্ব বর্ধমানে ভোট পরবর্তী রাজনৈতিক হিংসার বিরাম নেই। এবার রাজনৈতিক হিংসার হাত থেকে বাবাকে বাঁচাতে গিয়ে মৃত্যু হল ছেলের। মৃতের নাম বলরাম মাঝি(২২)। ঘটনাটি ঘটেছে পূর্ব বর্ধমানের কেতুগ্রাম থান শ্রীপুর গ্রামে। এনিয়ে জেলায় ভোট পরবর্তী
রাজনৈতিক হিংসার বলি হলেন ৬ জন। মৃতর পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে কেতুগ্রাম থানার পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে।

মৃত বলরাম মাঝির মা টুম্পা মাঝি অভিযোগ জানিয়েছেন, গত মঙ্গলবার সকালের দিকে তৃণমূলের একদল যুবক হঠাৎই গ্রামে ঢুকে আক্রমণ চালায়। তারা বেশ কয়েকটি বাড়ি ভাঙচুর করে। সেই সময় তাঁর স্বামী মৃত্যুঞ্জয় মাঝিকে তৃণমূল কর্মীরা মারধর করতে থাকে। তা দেখে বাবাকে বাঁচাতে যায় ছেলে বলরাম মাঝি। তখন তৃণমূলের কর্মীরা বলরামের মাথায় বাঁশের আঘাত করে। গুরুতর জখম হওয়া বলরামকে আশঙ্কাজনক অবস্থয় বর্ধমানের একটি বেসরকারী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বুধবার রাতে সেখানেই তাঁর মৃত্যু হয়। আক্রমণের কারণ প্রসঙ্গে টুম্পা দেবী জানান, তৃণমূলের কর্মীরা এসে বলে এরা সব বিজেপিকে ভোট দিয়েছে। এলাকার তৃণমূল নেতা স্বপন মোল্লা-ই তাঁর ছেলেকে মেরেছে বলে টুম্পা দেবী অভিযোগ করেছেন ।
বৃহস্পতিবার বর্ধমান হাসপাতাল পুলিশ মর্গে বলরাম মাঝির মৃতদেহ ময়না তদন্ত করা হয়।

- Advertisement -

এবিষয়ে বিজেপির কাটোয়া সাংগঠনিক জেলা সম্পাদক কৃষ্ণ ঘোষ বলেন, ‘ভোটের ফল বের হওয়ার পর থেকেই তৃণমূল কংগ্রেস সন্ত্রাস চালিয়ে যাচ্ছে। বাড়ি ঘর ভাঙচুর করছে। বিজেপি কর্মীদের খুন করছে।
সব জেনেও প্রশাসন নিরব রয়েছে।’

অভিযোগ অস্বীকার করে জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের মুখপাত্র প্রসেনজিৎ দাস বলেন, ’কোনও মৃত্যুই কাম্য নয়।’ তাঁর দাবি জেলার বিভিন্ন জায়গায় বিজেপি-ই হামলা চালাচ্ছে। সন্ত্রাস সৃষ্টি করছে।