জেলা পরিষদের ২ আধিকারিকের নামে দূর্নীতির অভিযোগ এনে ছবি ও পোস্টার

188

রায়গঞ্জ, ১৮ ফেব্রুয়ারিঃ কোনও রাজনৈতিক নেতা নয়, এবার সরকারি দপ্তরের ২ উচ্চপদস্থ আধিকারিকের নামে একাধিক অভিযোগ লেখা পোস্টার পড়ল। উত্তর দিনাজপুর জেলা পরিষদ ভবন চত্বরের একটি দেয়ালে ২ আধিকারিকের ছবি সহ পোস্টার লাগিয়ে দিয়েছে কে বা কারা তা নিয়ে জল্পনা শুরু হয়েছে। এমন ঘটনা চোখে পড়তেই চাঞ্চল্য ছড়ায়। আধিকারিকদের নামে টাকা তোলা সহ শাসকদলের কাজ করা সহ নানান অভিযোগ পোস্টারে উল্লেখ করা রয়েছে। জেলা পরিষদের বাস্তুকার অসীম ভট্টাচার্য্য ও সেক্রেটারি সঞ্জয় হাওলাদারের নামে রাতের অন্ধকারে জেলা পরিষদ ভবনেরই দেওয়ালে এমন পোস্টার পড়েছে।

ইতিমধ্যেই, সঞ্জয়বাবু রায়গঞ্জ থানায় বিষয়টি অভিযোগ দায়ের করেছেন। অসীমবাবুও থানায় অভিযোগ দায়ের করবেন বলে জানান। তাঁদের দাবি, পোস্টারে উল্লেখ করা অভিযোগ ভিত্তিহীন এবং উদ্দেশ্য প্রণোদিত। সম্মানহানি করতেই কেউ এমন কাজ করেছেন বলে অভিযোগ তাঁদের। অসীম বাবুর বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলা হয়েছে, ২০১৪ সালে ২ বার বদলির আদেশ আসার পরেও তাঁর বদলি হয়নি। বিগত ৭ বছর ধরে একসঙ্গে ৩টি পদ সামলাচ্ছেন। অপরদিকে, শাসকদলের হয়ে ঠিকাদারি কাজ পাইয়ে দেওয়ার নামে অর্থ সংগ্রহ করছেন। আরও অভিযোগ আনা হয়েছে, ক্ষমতার অপব্যবহার করে জনসাধারণ এবং অফিস আধিকারিকদের সর্বক্ষণ অপমানজনক কথা বলে থাকেন।

- Advertisement -

অসীমবাবু বলেন, সংশ্লিষ্ট পোস্টারের ফলে আমার সম্মানহানি ঘটেছে। কারও আঁতে ঘা লেগেছে বলেই এমন কাজ করেছে। এই ঘটনায় অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে, ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য থানায় লিখিত অভিযোগ জানাবো। অন্যদিকে, সেক্রেটারি সঞ্জয় হাওলাদারের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছে, উনি দলের নাম করে অর্থ তোলেন। বদলির অর্ডার সত্বেও তিনি এক জায়গায় বহাল রয়েছেন। পোস্টারে ২ জনের নামেই একাধিক অভিযোগ তোলা হয়েছে। জেলা পরিষদের সেক্রেটারি সঞ্জয় হাওলাদার বলেন, এইসব অভিযোগ পুরোটাই ভিত্তিহীন। সরকারি সমস্ত গাইডলাইন মেনেই আমরা কাজ করছি। কেউ ব্যক্তিস্বার্থ চরিতার্থ করতে না পেরে, এমনটা করে থাকতে পারে। রায়গঞ্জ থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছি। এমন ঘটনা জেলা পরিষদের চত্বরে আগে কখনও ঘটেনি বলে দাবি সরকারি দপ্তরের অন্য কর্মীদের।

বিজেপির জেলা সভাপতি বিশ্বজিৎ লাহিড়ী জানান, টাকা তোলার ঘটনা নতুন কিছু নয়। এই শাসনে হবে না, এমন কিছু হতে পারে না। আমরা ২ আধিকারিকের বিরুদ্ধে তদন্তের দাবি জানাবো। তৃণমূল কংগ্রেসের জেলা সভাপতি কানাইয়া লাল আগরওয়ালা বলেন, ঘটনার সত্যতা কতটা রয়েছে তা দেখার জন্য জেলাশাসকের সঙ্গে কথা বলব।