পরপর করোনা আক্রান্ত, ঝুঁকি নিয়ে পরিষেবা স্বাভাবিক রাখছেন বিদ্যুৎকর্মীরা

236

রায়গঞ্জ: রাজ্যজুড়ে আংশিক লকডাউন। প্রত্যেকটি দপ্তরের একের পর এক কর্মী প্রতিদিন করোনায় আক্রান্ত হচ্ছেন। কিন্তু জরুরি পরিষেবা স্বাভাবিক রাখতে দিনরাত কাজ করে যাচ্ছেন বিদ্যুৎ দপ্তরের রায়গঞ্জ ডিভিশনের কর্মীরা। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পরিষেবা স্বাভাবিক রাখতে লাইন মেরামতের কাজ করে যাচ্ছেন। ঝড়-বৃষ্টির জেরে তার ছিঁড়ে পড়ছে, পোল ভেঙ্গে পড়ছে। সেই সময় গ্রাহক পরিষেবা স্বাভাবিক করে তুলছেন। গ্রাহকদের পরিষেবা স্বাভাবিক রাখতে ইতিমধ্যে বিদ্যুৎ দপ্তরের ১৫ থেকে ২০ জন কর্মী করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। অন্য কর্মীদের সংক্রমণের সম্ভাবনা থাকলেও কাজে ঘাটতি নেই তাঁদের। এর মাঝেও পাড়ার সবার চোখ রাঙ্গানি সহ্য করতে হয় বলে অভিযোগ।

রায়গঞ্জ ডিভিশনে রায়গঞ্জ, করনদিঘি, কালিয়াগঞ্জ, হেমতাবাদ ও ইটাহার মিলিয়ে প্রায় ৭৫০ কর্মী কাজ করেন। এদের মধ্যে প্রায় ৩৫০ কর্মী লাইনের কাজে যুক্ত রয়েছেন। রায়গঞ্জ শহরে পরিষেবা স্বাভাবিক রাখছেন ১৫০ কর্মী। রায়গঞ্জ ডিভিশনের অ্যাসিস্ট্যান্ট ম্যানেজার অনির্বাণ সরকার বলেন, ‘প্রায় ১৫ জন কর্মী করোনা আক্রান্ত হওয়ায় পরিষেবা স্বাভাবিক রাখতে সমস্যা হচ্ছে। তবে, সাধারণ মানুষের যাতে কোনও সমস্যা না হয়। সকলের কাছে আবেদন, যদি প্রাকৃতিক বিপর্যয় হয় সেইসময় আমাদের পাশে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেবেন।‘

- Advertisement -

বিদ্যুৎকর্মী সুনীল পাল বলেন, ‘জীবনের ঝুঁকি নিয়ে আমরা কাজ করছি। অনেকেই করোনায় আক্রান্ত হচ্ছেন। ফলে খুব কম সংখ্যক কর্মী মিলে পরিষেবা দিচ্ছি। এরজন্য পুরস্কার তো মেলে না, মাঝেমধ্যে মেলে তিরস্কার।‘ আরও এক কর্মী দিলীপ বর্মন বলেন, ‘সাধারণ মানুষ যাতে বিপদে না পড়েন সেই জন্য আমরা ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছি। কিন্তু আমাদের কথা কেউ ভাবে না। পাশে কাউকেই পাই না।‘