দিল্লি, ২০ ডিসেম্বরঃ প্রদ্যুম্ন ঠাকুর খুনের ঘটনায় ধৃত কিশোরকে প্রাপ্তবয়স্ক হিসেবে ধরা হবে। তার বিচার হবে সাবালকের মতোই। আজ এই নির্দেশ দিয়েছে জুভেনাইল জাস্টিস বোর্ড। রায়ান ইন্টারন্যাশনাল স্কুলে হওয়া এই হত্যাকাণ্ডের প্রকৃতি এতটাই ভয়ঙ্কর, হাড়হিম করা, দানবিক এবং গুরুতর, যে অভিযুক্তকে প্রাপ্তবয়স্ক হিসেবে গণ্য করেছে বোর্ড। তাই মামলাটি জুভেনাইল আদালত থেকে গুরুগ্রাম দায়রা আদালতে স্থানান্তরিত করা হয়েছে।

গতকাল সিবিইয়ের তিন সদস্যের একটি দল অভিযুক্ত কিশোরের ফিঙ্গারপ্রিন্ট সংগ্রহ করে। ফরিদাবাদের একটি হোমে রাখা রাখা হয়েছে কিশোরকে।

এদিকে জুভেনাইল জাস্টিস বোর্ডে ওই কিশোরের সোশাল ব্যাকগ্রাউন্ড সংক্রান্ত একটি রিপোর্ট জমা করা হয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে, প্রকৃতিগতভাবে অভিযুক্ত ওই কিশোর বেশ আক্রমণাত্মক।

জুভেনাইল আদালতে অভিযুক্ত কিশোর যদি দোষী সাব্যস্ত হত তাহলে তার সর্বোচ্চ তিন বছরের সাজা হত। তবে, প্রাপ্তবয়স্কদের মত তার বিচার হলে সাজা আরও অনেক কঠিন হবে।

উল্লেখ্য, গত ৮ সেপ্টেম্বর রায়ান ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্র প্রদ্যুম্ন ঠাকুরের গলার নলি কাটা দেহ উদ্ধার হয়। এই খুনের সন্দেহে ওই স্কুলেরই বছর ১৬ এর একাদশ শ্রেণির এক ছাত্রকে আটক করা হয়। সিবিআইয়ের জেরায় নিজের দোষ স্বীকার করে সে।