উত্তরবঙ্গে আসছেন পিকে-অভিষেক, বেসুরোদের ডাক মমতার

318

নিউজ ব্যুরো : দলবদলের আরও সম্ভাবনা একেবারে উড়িয়ে দিচ্ছে না তৃণমূল কংগ্রেস। উত্তরবঙ্গে লোকসভা ভোটের নিরিখে পিছিয়ে আছে দল। বিজেপিতে আরও কেউ যদি যোগ দেয়, তাহলে পরিস্থিতি আরও খারাপ হবে। তৃণমূল সূত্রে খবর, খুব শীঘ্র শিলিগুড়িতে আসছেন ডায়মন্ড হারবারের সাংসদ তথা প্রদেশ তৃণমূল যুব কংগ্রেস সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এবং দলের পরামর্শদাতা প্রশান্ত কিশোর। ২০২১ সালের শুরুতে শিলিগুড়ি আসবেন তাঁরা। কয়েক মাস আগেও দুজনে দিনদুয়েক শিলিগুড়িতে থেকে দলীয় নেতৃত্বের সঙ্গে বৈঠক করেছিলেন। এবার আলোচনার জন্য ডাকা হতে পারে চা বাগান, কোচবিহার, আলিপুরদুয়ার, জলপাইগুড়ি ও শিলিগুড়ির নেতাদের। পাহাড় পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা হতে পারে। ইতিমধ্যে তৃণমূলত্যাগী শুভেন্দু অধিকারী দলের দক্ষিণবঙ্গের পাশাপাশি উত্তরবঙ্গে একাধিক জেলায় পর্যবেক্ষক থাকাকালীন ব্যক্তিগত স্তরে প্রভাব বাড়িয়েছিলেন। খুব শীঘ্র তিনি পদ্ম শিবিরের ভিত শক্ত করতে উত্তরবঙ্গে যেতে পারেন বলে জানা গিয়েছে। ইতিমধ্যে বেশ কয়েক জন তৃণমূল নেতার সঙ্গে তাঁর আলোচনা হয়েছে বলে সূত্রের খবর। এই খবর জেনে দল গোছাতে পিকে ও অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের এই উত্তরবঙ্গ যাত্রা বলে জানা গিয়েছে।

অন্যদিকে, দলে যাঁরা বেসুরো গাইছেন, তাঁদের সামলাতে তৃণমূল সুপ্রিমো নিজে উদ্যোগী হচ্ছেন বলে জানা গিয়েছে। সূত্রের খবর, পিকে, দলের বর্ষীয়ান নেতা সৌগত রায়, সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়, পার্থ চট্টোপাধ্যায়রা ব্যক্তিগত স্তরে বিক্ষুব্ধ নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করলেও খুব বেশি সাফল্য না পাওয়ায় এখন মুখ্যমন্ত্রীর এই উদ্যোগ। তৃণমূল ত্যাগের ঘোষণার পর দিদির সঙ্গে আছি বলে একদিনের মধ্যে ঘর ওয়াপসি করেছিলেন পাণ্ডবেশ্বরের বিধায়ক জিতেন্দ্র তিওয়ারি। এতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের একটি ফোনের অবদান ছিল। সেই অভিজ্ঞতা অন্যদের ক্ষেত্রে কাজে লাগাতে চাইছেন তৃণমূল সুপ্রিমো। নতুন করে দল ভাঙানোর চেষ্টাও চলতে পারে। সূত্রের খবর, পিকে ও অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের উত্তরবঙ্গ সফরের আগে চা বাগানে গেরুয়া শিবিরের এক নেতার সঙ্গে আলোচনা চলছে তৃণমূলের। ওই আলোচনা ফলপ্রসূ হলে হয়তো ওই সফরেই তাঁকে দলে টানবে তৃণমূল।

- Advertisement -