ফালাকাটায় সলিড ওয়েস্ট ম্যানেজমেন্ট প্রকল্পের প্রস্তুতি শুরু

252
ফালাকাটার খলিসামারিতে এই জমিতেই হবে সলিড ওয়েস্ট ম্যানেজমেন্ট প্রকল্পের কাজ।

সুভাষ বর্মন, ফালাকাটা: কোভিড ১৯ পরিস্থিতিতেও মিশন নির্মল বাংলা প্রকল্পে ফালাকাটায় সলিড ওয়েস্ট ম্যানেজমেন্ট প্রকল্পের কাজ শুরু হতে চলেছে। ইতিমধ্যে বেশ কিছু গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় এই প্রকল্পের জন্য জমি চিহ্নিত হয়েছে।

সম্প্রতি শহরের পারঙ্গেরপার গ্রাম পঞ্চায়েতের খলিসামারিতে এই প্রকল্পের বাস্তবায়ন নিয়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও বাসিন্দাদের সঙ্গে ব্লক প্রশাসনের বৈঠক হয়। সূত্রের খবর, কোনও জটিলতা না থাকায় এই খলিসামারিতেই প্রথম সলিড ওয়েস্ট ম্যানেজমেন্ট প্রকল্পের কাজ শুরু হতে চলেছে। প্রশাসনের দাবি, এই প্রকল্পের মাধ্যমে নির্দিষ্ট গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় কিছু কর্মসংস্থানও হবে। ফালাকাটার বিডিও সুপ্রতীক মজুমদার বলেন, ‘ব্লকের ১২টি গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রতিটিতেই এই প্রকল্পের কাজ করা হবে। দ্রুত কাজ শুরু করতে সবরকমের প্রস্তুতি চলছে।’

- Advertisement -

১২টি গ্রাম পঞ্চায়েত নিয়ে ফালাকাটা ব্লক গঠিত। এর মধ্যে ফালাকাটা ১, ফালাকাটা ২ ও পারঙ্গেরপার গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকা শহরের মধ্যে পড়ছে। তাই প্রথম দিকে শহর ও শহর সংলগ্ন এলাকাতেই সলিড ওয়েস্ট ম্যানেজমেন্ট প্রকল্পে জোর দেওয়া হচ্ছে। পারঙ্গেরপারের খলিসামারিতে এজন্য সরকারি খাস জমি চিহ্নিত হয়েছে। সূত্রের খবর, ফালাকাটা ২ গ্রাম পঞ্চায়েতের কাদম্বিনি চা বাগান এলাকায় এই প্রকল্পের জন্য জমি দিতে সম্মত হয়েছে বাগান কর্তৃপক্ষ। তবে প্রশাসন ফালাকাটা ১ গ্রাম পঞ্চায়েতে এখনও জমি চিহ্নিত করতে পারেনি। শহরের এই গ্রাম পঞ্চায়েতেও প্রচুর খাস জমি রয়েছে। প্রশাসন এ রকম ফাঁকা জমির খোঁজ চালাচ্ছে।এদিকে জটেশ্বর ২ গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকাতেও এই প্রকল্পের জন্য জমির সন্ধান পেয়েছে প্রশাসন।

সূত্রের খবর, মিশন নির্মল বাংলায় প্রতিটি সলিড ওয়েস্ট ম্যানেজমেন্ট প্রকল্পের জন্য ৩০ লক্ষ টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। প্রতিটি প্রকল্পের জন্য ৩ বিঘা করে জমির প্রয়োজন। তবে ভূমি সংস্কার ও প্রাচীরের কাজ সংশ্লিষ্ট গ্রাম পঞ্চায়েত থেকে একশোদিনের প্রকল্পে করা হবে বলে প্রশাসনের কর্তারা জানিয়েছেন। এখন জটেশ্বর ১, গুয়াবরনগর, ধনীরামপুর ১, ধনীরামপুর ২, দলগাঁও, দেওগাঁও, শালকুমার, ময়রাডাঙ্গা গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকাতেও এই প্রকল্প চালু করার ব্যাপারে প্রশাসন তোড়জোড় শুরু করেছে।

এছাড়াও, পারঙ্গেরপার গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় দোকান ও বাড়ির আবর্জনা সংগ্রহের জন্য সাতটি কালেকশন সেন্টার তৈরি হবে। এ কারণে, ওই সাতটি সেন্টার থেকে ভ্যানে করে পাড়ায় পাড়ায় ঘুরে আবর্জনা সংগ্রহ করবে। এইসব আবর্জনা সলিড ওয়েস্টের মাধ্যমে জৈব সার হয়ে বের হবে। সেই জৈব সার বিক্রিও হবে। এই সলিড ওয়েস্ট ম্যানেজমেন্ট প্রকল্পে স্থানীয়রাই কর্মসংস্থানের সুযোগ পাবেন। প্রতিটি গ্রাম পঞ্চায়েতে একইভাবে এই প্রকল্পের কাজ হবে।

ফালাকাটার বিডিও সুপ্রতীক মজুমদার বলেন, ‘লকডাউনের জন্য প্রকল্পগুলির কাজ কিছুটা পিছিয়ে গিয়েছে। এখন ধাপে ধাপে প্রতিটি গ্রাম পঞ্চায়েতেই প্রকল্পের কাজ শুরু হচ্ছে। পারঙ্গেরপার, ফালাকাটা ২ ও জটেশ্বর ২ গ্রাম পঞ্চায়েতে জমি চিহ্নিত হয়ে গিয়েছে। বাকি গ্রাম পঞ্চায়েত গুলিতেও জমির খোঁজ করা হচ্ছে। চলতি বছরেই ১২টি গ্রাম পঞ্চায়েতে ১২টি সলিড ওয়েস্ট ম্যানেজমেন্ট প্রকল্পের কাজ শেষ করার লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে।