করোনাকালেও হরিদ্বারে কুম্ভমেলার প্রস্তুতি শুরু

471

দেরাদুন: মহামারি করোনা বিদায় নেবে কিনা, কেউ জানে না। কিন্তু বছর ঘুরলেই হরিদ্বারে কুম্ভমেলার জন্য প্রস্তুতি শুরু হয়ে গেল। ২০২১-এর ১২ মার্চ শাহি স্নান নির্ধারিত আছে। উত্তরাখণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী ত্রিবেন্দ্র সিং রাওয়াত ইঙ্গিত দিয়েছেন, শারীরিক দূরত্ববিধি নিশ্চিত করতে আসন্ন মেলায় পুণ্যার্থীদের জন্য পাসের ব্যবস্থা করা হতে পারে।

১১ বছর পরে কুম্ভমেলা হতে চলেছে হরিদ্বারে। শেষবার হয়েছিল ২০১০ সালের ১৪ এপ্রিল। সেই বছর মেলায় এসেছিলেন ১ কোটি ৫০ লক্ষ পুণ্যার্থী। উত্তরাখণ্ডের এক সরকারি আধিকারিক জানিয়েছেন, হরিদ্বারে চার ধাম যাত্রায় ৯ লক্ষের মতো তীর্থযাত্রী যোগ দিয়ে থাকেন। এ বছর কোভিড পরিস্থিতিতে মাত্র কয়েকশো পুণ্যার্থী যোগ দিয়েছিলেন। সংক্রমণ অব্যাহত থাকলে কুম্ভমেলাতেও একই ছবি দেখা যেতে পারে। যদিও আয়োজনে ত্রুটি রাখছে না উত্তরাখণ্ড সরকার। হরিদ্বারের আগাপাস্তলা ঢেলে সাজাতে কয়েকশো পরিযায়ী শ্রমিককে নিয়োগ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ওই আধিকারিক।

- Advertisement -

মেলার ভারপ্রাপ্ত আধিকারিক দীপক রাওয়াত জানিয়েছেন, কুম্ভমেলা আয়োজনে ৩৭০ কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্পের ৭০ শতাংশের কাজ ১৫ ডিসেম্বরের মধ্যে সম্পূর্ণ করার পরিকল্পনা করা হয়েছে। সাতটি সেতু নির্মাণের পাশাপাশি একাধিক নতুন রাস্তা তৈরি হবে। রাস্তাগুলিকে চিহ্নিত করা হবে আস্থা পথ নামে। আমূল সংস্কার হচ্ছে দমকল, বাস স্টেশন, পুলিশ ব্যারাক ও বিভিন্ন ঘাটের। সৌন্দর্য্যের ডালিতে ভরিয়ে তোলা হচ্ছে হরিদ্বারের বিভিন্ন ঘাট। এখানে গঙ্গা কতটা নির্মল, তা পুণ্যার্থীরা কুম্ভমেলায় এলে দেখতে পাবেন বলে জানিয়েছে স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।