আনলক পর্ব পর্যালোচনায় মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠকে বসতে চলেছেন মোদি

506
ফাইল ছবি

নয়াদিল্লি: লকডাউনের মেয়াদ শেষ। শুরু হয়েছে আনলক পর্ব। তাও দেশে সংক্রমণের হার অব্যাহত। সেই নিরিখে সুরাহা খুঁজতে আবারও মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠকে বসতে চলেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ১৬ ও ১৭ জুন দুদফায় সমস্ত রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে আলোচনায় বসবেন প্রধানমন্ত্রী। বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ১৭ জুন বৈঠকে অংশ নেবেন।

- Advertisement -

উল্লেখ্য, করোনা প্রতিরোধে প্রায় তিন মাস সারা দেশ জুড়ে চারদফা লকডাউন চলার পর কেন্দ্র আনলক ঘোষণা করেছে। যদিও কনটেনমেন্ট জোনে এখনও বহাল আছে লকডাউন। কিন্তু দেশে আর্থিক সঙ্গতি ও কর্মসংস্কৃতি ফেরানোর তাগিদেই লকডাউন শেষ করে আনলকের পথে হেঁটেছে কেন্দ্র। কিন্তু লকডাউন বা আনলক কোনও কিছুই সংক্রমণের হার ঠেকাতে পারেনি। লকডাউনের সময় লাফিয়ে লাফিয়ে বেড়েছিল সংক্রমণ।

আনলক পর্বে শহর কলকাতা (ছবি: রাজীব মণ্ডল)

আনলক হওয়ায় সারাদেশে ধর্মীয়স্থল সহ বাজার, দোকানপাট, মল ইত্যাদি খুলেছে। অবশ্য খুলেছে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের নির্দেশিকা মেনেই। কিন্তু তাতেও লাভ হযনি। উল্টে দ্বিগুণ সংক্রমণ ছড়িয়েছে সারাদেশে। গোটাদেশে এই মুহুর্তে আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় তিন লক্ষ। মৃত্যু হয়েছে প্রচুর। সেই অবস্থায় আনলক পর্ব কতটা সফল সে নিয়ে উঠেছে প্রশ্ন।

দেশে সংক্রমণের হার বৃদ্ধি পাওয়ায় অস্বস্তিতে পড়েছে কেন্দ্র সরকার। বোঝা যাচ্ছে এইরকম চলতে থাকলে অচিরেই বিশ্বে করোনা প্রভাবিত রাষ্ট্রগুলির তালিকার শীর্ষে উঠে আসবে ভারত। অথচ কেন্দ্র বিশ্বাস করে বেশিদিন লকডাউন জারি রেখে লাভ নেই। আনলকের পথেই হাঁটতে হবে দেশকে। দেশীয় অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে আবারও স্বাভাবিক জীবনযাপনে ফিরতে হবে।

অথচ দেশে করোনা পরিস্থিতি ক্রমেই ভয়াবহ আকার ধারণ করছে। এদিকে এখনও বিভিন্ন রাজ্যে আটকে রয়েছেন অসংখ্য পরিযাযী শ্রমিক। কেন্দ্র এখনও পর্যন্ত বাসে ও ট্রেনে প্রায় ১ কোটি শ্রমিক ফেরালেও নানা রাজ্যে এখনও আটকে আছে বহু মানুষ। এদিকে রয়েছে সংক্রমণ ছড়িযে পড়ার ভয়। তাই এই মুহুর্তে সারাদেশে করোনা প্রতিরোধে জরুরি পদক্ষেপ কি নেওয়া উচিত, আনলক পর্বে আরও কতটা নিয়মকানুন মেনে চলা উচিত বা নেওয়া উচিত কিনা কোন বিশেষ বন্দোবস্ত সে সব নিযে পুনরায় মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে আলোচনায় বসার তাগিদ অনুভব করছে সরকার।

সেইজন্যই ১৬-১৭ জুন দুদফায় সমস্ত রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে আলোচনা করবেন মোদি। বৈঠকে উপস্থিত থাকবেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ সহ স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষবর্ধন ও বিশিষ্ট কেন্দ্রীয় আধিকারিকরা। দেখার বিষয় দুদিনের এই বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে পরামর্শ করে করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে নতুন করে কোন পদক্ষেপ নিতে পারেন কিনা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।