‘ছেঁড়া জিনস’ বিতর্কে কটাক্ষ প্রিয়াঙ্কা গান্ধির

78
ছবিটি সংগৃহীত

দেরাদুন:  উত্তরাখণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী তীরথ সিংহ রাওয়াতের মেয়েদের ছেঁড়া জিনস পরার মন্তব্য ঘিরে ক্রমশ বিতর্ক শুরু হয়েছে। বৃহস্পতিবার সারাদিন এই মন্তব্যকে ঘিরে উত্তাল ছিল সোশ্যাল মিডিয়া। সঙ্গে লেখা ছিল হ্যাশট্যাগ রিপড্‌জিন্স। এদিন টুইটারে রিপড্‌ জিন্স পরা ছবির বন্যা বয়ে গিয়েছে। তারকা থেকে শুরু করে রাজনীতিবিদ, সাধারণ মানুষ সকলেই এই মন্তব্যের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন। এবার তা নিয়ে বিজেপি এবং রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘকে কটাক্ষ করলেন প্রিয়াঙ্কা গান্ধি বঢরা। মুখ্যমন্ত্রীর এমন মন্তব্যের সমালোচনায় সরব হয়েছেন সমাজবাদী পার্টির সাংসদ জয়া বচ্চন, রণদীপ সিংহ সুরজেওয়ালা, কপিল সিব্বল, তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্র প্রমুখ।

কিছুদিন হল উত্তরাখণ্ডের মুখ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব নিয়েছেন তীরথ সিংহ রাওয়াত। মঙ্গলবার দেরাদুনে রাজ্য শিশু অধিকার রক্ষা কমিশন আয়োজিত একটি ওয়ার্কশপে গিয়েছিলেন তিনি। সেখানে তিনি বলেন, উড়ানে ছেঁড়া জিনস পরা এক মহিলাকে দেখে তিনি বিস্মিত হয়েছেন। জিনসের ফাঁক দিয়ে মহিলার হাঁটু দেখা যাচ্ছিল। মহিলা তাঁকে জানান, তিনি একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন চালান। তাঁর সঙ্গে দুই শিশুও ছিল। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘এধরনের মহিলারা যদি সমাজে ঘুরে বেড়ান, মানুষের সমস্যা মেটাতে তাঁদের সঙ্গে দেখা করেন, তা হলে তাঁরা সমাজ আর শিশুদের কী বার্তা দিচ্ছেন? উন্মুক্ত হাঁটু দেখিয়ে, ছেঁড়া জিন্স পরে, উচ্চবিত্ত ছেলেমেয়ের মতো হাবভাব। আমরা যা করব, বাচ্চারা তাই শিখবে।’

- Advertisement -

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, মোহন ভাগবত, নিতিন গডকড়ি সহ আরএসএস নেতাদের খাঁকি হাফপ্যান্ট পরা ছবি টুইটারে পোস্ট করে প্রিয়াঙ্কা গান্ধি লিখেছেন, ‘হে ভগবান! ওঁদের হাঁটু দেখা যাচ্ছে তো’। সাংসদ অভিনেত্রী জয়া বচ্চনও রাওয়তের মন্তব্যের প্রেক্ষিতে বলেন, ‘এধরনের মনোভাবের জন্যই মহিলাদের বিরুদ্ধে অপরাধের প্রবণতা বাড়ছে।’

কংগ্রেস নেতা সঞ্জয় ঝাঁ বলেন, ‘প্রিয় বিজেপি, ইনি আপনাদেরই মুখ্যমন্ত্রী তীরথ সিংহ রাওয়াত। এটা কি আপনারা সমর্থন করেন?’ অভিনেত্রী গুল পনাগ এদিন মেয়ের সঙ্গে যে নিজস্বী টুইট করেছেন, তাতে তিনি পরেছেন রিপড‌্ জিনস। আরএসএস এর দীর্ঘদিনের পোশাক খাঁকি হাফপ্যান্টেও যে হাঁটু দেখা যেত তা স্মরণ করিয়ে দিয়ে টুইটারে কটাক্ষ করেছেন তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্র।

যদিও এবিষয়ে তীরথ সিংহ রাওয়াতের স্ত্রী রশমি ত্যাগী স্বামীর হয়ে দাবি করেন, ‘উনি বলছিলেন যে আমরা অন্ধের মতো কীভাবে পশ্চিমী সংস্কৃতি পিছনে দৌড়াচ্ছি। হাজার হাজার বছর ধরে আমাদের নিজের যে সংস্কৃতি গড়ে উঠেছে, তা অনুসরণ করছি না। কিন্তু ওনার একটি শব্দ তুলে ধরা হয়েছে এবং প্রসঙ্গে ছাড়াই তা বলা হয়েছে। ভুলভাবে পুরো বিষয়টির ব্যাখ্যা করা হয়েছে।