সালিশি সভায় ধারালো অস্ত্র দিয়ে দাদাকে খুনের চেষ্টা ভাইয়ের, তদন্তে পুলিশ

230

রায়গঞ্জ, ২৭ জুলাইঃ মাতব্বরদের নির্দেশে বসতবাড়ির জমি ঘিরে পারিবারিক বিবাদ নিষ্পত্তির জন্য সালিশি সভা ঘিরে উত্তেজনা ছড়াল। সোমবার কালিয়াগঞ্জ থানার কুনোর এলাকায় ঘটনাকে কেন্দ্র করে ব্যপক চাঞ্চল্য ছাড়িয়েছে। অভিযোগ, এদিন সভা চলাকালীন ধারালো অস্ত্র দিয়ে দাদাকে মাথায় কুপিয়ে খুন করার চেষ্টা করে ভাই ও তাঁর পরিবার। বাবাকে বাঁচাতে গিয়ে জখমের ছেলের পা দুই টুকরো করে হয়ে গিয়েছে। এদিন বিকেলে অভিযুক্ত হরেন সরকার, বিজন সরকার, রাম সরকার সহ মোট ৫ জনের নামে জখমের স্ত্রী থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। ইতিমধ্যেই, পুলিশ অভিযুক্তদের খোঁজে তল্লাশি শুরু করেছে।

কালিয়াগঞ্জের কুনোর এলাকায় মাতব্বরদের উপস্থিতিতে গ্রামের ২ ভাইয়ের ৯ শতক বসত বাড়ির জমি ঘিরে দীর্ঘদিন ধরে গন্ডগোল চলছিল। এদিন তা মেটানোর লক্ষ্যে সালিশি সভা শুরু হয়েছিল। প্রথমদিকে, অত্যন্ত ধীর গতিতে আলোচনা চলছিল। ২ ভাইয়ের ছেলেরাও সভায় হাজির ছিলেন। হঠাৎ বসতবাড়ির জমি ভাগাভাগি নিয়ে পরস্পরের মধ্যে বিবাদ শুরু হয়। এরপর ঝগড়া থামাতে এলাকার এক প্রভাবশালী ২ ভাইয়ের ছেলেদের বোঝাতে শুরু করেন। ওই সময় হঠাৎ হরেন সরকার ধারালো অস্ত্র দিয়ে মাথায় কোপ মারতে শুরু করেন। সঙ্গে সঙ্গে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন নগেন সরকার (৫০)। বাবাকে বাঁচাতে গিয়ে পা দুই টুকরো হয়ে যায় ছেলে সুমন সরকারের (১৯)। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। তবে, পুলিশ এখনও পর্যন্ত অভিযুক্তদের গ্রেপ্তার করতে পারেনি।

- Advertisement -

স্থানীয়রা গুরুতর জখম বাবা ও ছেলেকে উদ্ধার করে রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজে ভর্তি করেন। নগেন বাবুর অবস্থা ক্রমশ অবনতি হওয়ায় এদিন সন্ধ্যা ৭টা নাগাদ উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়েছে। অন্যদিকে, নগেন বাবুর ছেলে সুমন সরকার রায়গঞ্জেই চিকিৎসাধীন রয়েছেন। অস্থি রোগ বিশেষজ্ঞ গোপাল পোদ্দার জানিয়েছেন, হাঁটুর দিকে ভারী কোনও বস্তু দিয়ে আঘাত করা হয়েছে। সে কারণ তাঁর পা দুই টুকরো হয়ে গিয়েছে। অপারেশন করা হয়েছে। তবে, প্রয়োজনে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাঁকেও স্থানান্তরিত করা হতে পারে বলে তিনি জানান।