বিমাতৃসুলভ আচরণের অভিযোগ, আন্দোলনে বিজেপির পঞ্চায়েত সদস্যরা 

132

হেমতাবাদ: হেমতাবাদ গ্রাম পঞ্চায়েতের বিজেপি সদস্যদের সঙ্গে বিমাতৃসুলভ আচরণের অভিযোগ উঠল তৃণমূল পরিচালিত গ্রাম পঞ্চায়েত কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে। এর প্রতিবাদে মঙ্গলবার তাঁরা পঞ্চায়েত অফিসে তালা ঝুলিয়ে দেন। পাশাপাশি পথ অবরোধ করে বিক্ষোভেও শামিল হন বিজেপির পঞ্চায়েত সদস্যরা। যদিও বিমাতৃসুলভ আচরণের অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে জানিয়েছেন প্রধান।

বিজেপির পঞ্চায়েত সদস্যদের অভিযোগ, প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনার ঘর প্রাপকদের নামের তালিকা তাঁদের দেওয়া হচ্ছে না। সরকারি প্রকল্পের সুবিধা তাঁরা পাচ্ছেন না। তাঁদের সঙ্গে বিমাতৃসুলভ আচরণ করা হচ্ছে। সেকারণে বিজেপির পঞ্চায়েত সদস্যরা এদিন হেমতাবাদ গ্রাম পঞ্চায়েত অফিসে তালা ঝুলিয়ে দেন। পাশাপাশি তাঁরা রায়গঞ্জ-বালুরঘাট রাজ্য সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখান। অবরোধের জেরে এলাকায় উত্তেজনা ছড়ায়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যান হেমতাবাদের বিডিও পৃথ্বীশ দাস। তাঁর আশ্বাসে অবরোধ তুলে নেওয়ার পাশাপাশি অফিসের তালা খুলে দেন বিজেপির পঞ্চায়েত সদস্যরা।

- Advertisement -

হেমতাবাদ গ্রাম পঞ্চায়েতের বিজেপি সদস্য বিপ্লব সরকার বলেন, ’আমরা প্রধান ও আধিকারিকদের কাছে একাধিকবার গিয়েছি। প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনার ঘর প্রাপকদের নামের তালিকা চেয়েছি। কিন্তু তা দেওয়া হয়নি। অথচ তৃণমূলের পঞ্চায়েত সদস্যদের দেওয়া হচ্ছে। আমাদের সরকারি প্রকল্প থেকে বঞ্চিত করা হচ্ছে। বিমাতৃসুলভ আচরণের প্রতিবাদে এদিন আমরা গ্রাম পঞ্চায়েত অফিসে তালা ঝুলিয়ে অবরোধে শামিল হই। পরে বিডিও তালিকা দেওয়ার আশ্বাস দিলে দপ্তরের তালা খুলে দেওয়া হয় ও অবরোধ তুলে নেওয়া হয়।‘

বিজেপির জেলা সভাপতি বিশ্বজিৎ লাহিড়ীর বক্তব্য, আর কয়েকদিন পর ক্ষমতা ছেড়ে চলে যেতে হবে। তবুও এদের হুঁশ ফেরেনি। উন্নয়ন না করে এরা টাকা লুট করেছে। মানুষ এর যোগ্য জবাব দেবে।

তবে প্রধান লায়লা আফরোজা বেগম বলেন, ‘এভাবে গ্রাম পঞ্চায়েত অফিসে পঞ্চায়েত সদস্যরা তালা মারতে পারেন না। আমি বুধবার প্রত্যেক সদস্যকে প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনার তালিকা দেওয়ার কথা জানিয়েছিলাম। তা সত্ত্বেও তাঁরা এদিন তালা মেরেছেন। ওঁনারা যখন বিক্ষোভ দেখান, তখন আমি গ্রাম পঞ্চায়েত অফিসে ছিলাম না। উন্নয়নের কাজ আমি সবাইকে নিয়েই করি।‘