কনটেইনমেন্ট জোন করায় ক্ষোভ স্থানীয়দের, খতিয়ে দেখছে পুরসভা

253

জলপাইগুড়ি: মাস খানেক আগেও ছিল তিনটি মাত্র কেস। এখন একটা থাকলে তাও আবার ১৩ দিন পেরিয়ে গেছে। এই অবস্থায় সরকারি নির্দেশে হঠাৎ করে শুক্রবার পুরসভার পক্ষ থেকে করে যাওয়া মাইক্রো কনটেইনমেন্ট মেনে নিতে পারছে না জলপাইগুড়ি পুরসভা এলাকার ২০ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দাদের একাংশ। তাদের বক্তব্য, সরকারি নির্দেশানুযায়ী যে এলাকায়  কমপক্ষে ৫ টি করোনা আক্রান্ত রোগী থাকবে এবং সেখান থেকে রোগ ছড়ানর সম্ভাবনা থাকছে, সেই জায়গায় মাইক্রো কনটেইনমেন্ট করা হবে। কিন্তু এর কোনাটাই এখন নেই। তাহলে কেন কনটেইনমেন্ট করা হলো। শুক্রবার এই ঘটনার প্রতিবাদে কনটেইনমেন্ট করার জন্য লাগানো দড়িতে কালো কাপড় ঝুলিয়ে প্রতিবাদ জানান ২০ নম্বর ওয়ার্ডে দক্ষিন বামন পাড়ার বাসিন্দারা। এদিকে এই ধরণের কিছু কিছু  সমস্যা হচ্ছে বলে স্বীকার করে নিয়েছেন পুরসভার প্রশাসনিক বোর্ডের চেয়ারপারসন পাপিয়া পাল। তবে বিষয়টি তিনি দেখবেন বলে জানান।

বাসিন্দাদের দাবি, তারা রবিবার পর্যন্ত দেখবেন।কনটেইনমেন্ট খোলা না হলে এলাকার বাসিন্দারা জেলাশাসকের কাছে পুরো বিষয়টি জানাবেন। এদিকে পুরসভার প্রশাসনিক বোর্ডের চেয়ারপারসন পাপিয়া পাল বলেন, ‘যে সময় প্রশাসনের পক্ষ থেকে হটস্পট এবং কনটেইনমেন্ট তালিকা তৈরি করা হয়েছিল, সেই সময় ওই জায়গার পজেটিভের সংখ্যা বেশি ছিল। ওই তালিকা অনুসারে যখন কনটেইনমেন্ট করা হয়েছে তখন পরিস্থিতির পরিবর্তন হয়েছে। তবে এলাকার বাসিন্দাদের পক্ষ থেকে যদি সমস্যার কথা জানানো হয়, তাহলে প্রশাসনিক স্তরে কথা বলে সমস্যার সমাধান করা হবে।‘

- Advertisement -