লকডাউনে বালির গাড়ি আটকে বিক্ষোভ গ্রামবাসীদের

412

রামপুরহাট: লকডাউনে বন্ধ দোকানপাট, যান চলাচল। এমনকি সাধারণ মানুষেরও বাড়ির বাইরে চলাফেরায় নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। তবে সোমবার লকডাউনে বালি বোঝাই লরি কিংবা ট্রাক্টরে চলেছে অবাধেই। কোথাও গ্রামবাসীরা বালির গাড়ি আটকে বিক্ষোভ দেখিয়েছেন। কোথাও আবার বালি ভর্তি ডাম্পারের চাকা ফেটে জখম হয়েছেন কর্তব্যরত হোমগার্ড।

সেপ্টেম্বর মাসের প্রথম লকডাউনে বন্ধ বীরভূমের দোকানপাট। রাস্তায় তেমন যানবাহন চলাচল করতে দেখা যায়নি। পথ চলতি মানুষকে আটকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। সন্তোষজনক উত্তর দিতে না পারলে আটকেও রাখা হচ্ছে। কিন্তু বালি বোঝাই লরি কিংবা ট্রাক্টর যাতায়াতে নেই কোন বাধা। ফলে সকাল থেকে অবাধে চলেছে বালি বোঝাই লরি থেকে পাথর বোঝাই লরি। সকালে রামপুরহাট থানার নারায়ণপুর গ্রামে বালি বোঝাই লরি ও ট্রাক্টর আটকে বিক্ষোভ দেখান গ্রামবাসীরা। তাদের দাবি দোকান বন্ধ থাকলে বালির লরি চলাচল করছে কিভাবে? এনিয়ে গ্রামে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। গ্রামবাসীদের দাবি, অবিলম্বে গ্রামের রাস্তা দিয়ে বালির গাড়ি চলাচল বন্ধ করতে হবে।

- Advertisement -

গ্রামের বাসিন্দা রাজা শেখ, ওয়াজেদ আলি বলেন, “লকডাউনে কোন শ্রমিক কাজ করতে গেলে ভিলেজ পুলিশ মারধর করছে। কিন্তু বালি বোঝাই লরি ও ট্রাক্টর চলছে। দিনে রাতে বালি বোঝাই অবৈধ গাড়ি চলার ফলে রাস্তা ভেঙে পড়ছে। বাচ্চা ছেলেমেয়েরা রাস্তায় বের হতে পারছে না। কিছু বলতে গেলে সমাজবিরোধীদের দিয়ে মারধর করার হুমকি দেওয়া হচ্ছে। তাই আমরা বালি বোঝাই ট্রাক্টর ও লরি আটকে রেখেছি”।

এদিন বেলার দিকে নলহাটির কাঁটাগড়িয়া মোড়ের কাছে বালি বোঝাই ডাম্পারের চাকা ফেটে জখম হন এক হোমগার্ড। প্রেমচাঁদ মাল নামে ওই হোমগার্ডকে লোহাপুর ব্লক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তবে এনিয়ে মুখ খুলতে চায়নি পুলিশ।