সুফল বাংলার স্টলে খাঁটি সুগন্ধি চাল

মণীন্দ্রনারায়ণ সিংহ, আলিপুরদুয়ার : খাঁটি সুগন্ধি চাল তুলাইপাঞ্জি, গোবিন্দভোগ, কালোনুনিয়া। এমনকি মালদার সুস্বাদু কলাইয়ের ডাল সহ নানা সামগ্রী সরকারি উদ্যোগে এবার পৌঁছে যাবে আপনার হাতের নাগালে। উত্তরবঙ্গের কোচবিহার, জলপাইগুড়ি, আলিপুরদুয়ারের বিভিন্ন শহরাঞ্চলের সুফল বাংলা স্টলগুলিতে রাজ্যের এবং ভিনরাজ্যের বিভিন্ন অপচনশীল নির্ভেজাল, সুস্বাদু খাদ্যশস্য খুব শীঘ্রই মিলতে চলেছে। মানুষের পছন্দের ওইসব খাদ্যসামগ্রী যাতে সারাবছর সরবরাহ করা যায়, সে ব্যাপারে উদ্যোগী হয়েছে রেগুলেটেড মার্কেট কমিটি। আলিপুরদুয়ার রেগুলেটেড মার্কেট কমিটির সেক্রেটারি সুব্রতকুমার দে বলেন, ফালাকাটায় সুফল বাংলার একটি আউটলেট শীঘ্রই চালু হবে। এখানেই সুফল বাংলার হাবে উত্তরবঙ্গের কয়েকটি জেলার জন্য কেন্দ্রীয়ভাবে খাদ্যশস্য মজুত করা হবে। পরবর্তীতে উত্তরবঙ্গের সমস্ত সুফল বাংলার স্টলে ওইসব খাদ্যসামগ্রী বিক্রির জন্য পাঠানো হবে। ইতিমধ্যে ফালাকাটার কৃষক বাজারে সেই পরিকাঠামো তৈরির কাজ শুরু হয়েছে।

রায়গঞ্জের সুগন্ধি তুলাইপাঞ্জি চালের চাহিদা সর্বত্রই কমবেশি রয়েছে। কিন্তু ওই চাল অনেক বাজারে মিললেও বেশিরভাগ সময় তা খাঁটি পাওয়া যায় না। সুগন্ধি চালের সঙ্গে অন্য সরু চাল মিশিয়ে তুলাইপাঞ্জি বলে বাজারে চালায় একশ্রেণির অসাধু কারবারি। ফলে তুলাইপাঞ্জির আসল স্বাদ এবং গন্ধ না পেয়ে অনেক গ্রাহকই পরে ওই চাল কেনার আগ্রহ হারিয়ে ফেলেন। আসল সুগন্ধি তুলাইপাঞ্জি গ্রাহকদের পৌঁছে দিতে সরকারি উদ্যোগে রায়গঞ্জের গ্রামাঞ্চল থেকে সুফল বাংলার বিক্রয়কেন্দ্রগুলির জন্য চাল সংগ্রহ করে তা ফালাকাটায় এনে মজুত করা হবে। পরবর্তীতে কোচবিহার থেকে শিলিগুড়ি পর্যন্ত যতগুলো সুফল বাংলার স্টল রয়েছে, সর্বত্র এই আসল তুলাইপাঞ্জি চাল পৌঁছে দেওয়া হবে। মালদার কলাইয়ের ডালের কদরও উত্তরবঙ্গের জেলাগুলিতে কম নয়। এখানকার উৎপাদিত কলাইয়ে ডালের স্বাদ ও গন্ধ ক্রেতাদের আকৃষ্ট করে। এবার ওই সুস্বাদু ডাল সরাসরি চাষিদের কাছ থেকে সংগ্রহ করে সুফল বাংলার স্টলে বিক্রির উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে।

- Advertisement -

বর্ধমানের গোবিন্দভোগ চাল বাজারে পাওয়া গেলেও সবসময় তার গুণমান ঠিক থাকে না। একনম্বর গোবিন্দভোগ চাল যে অঞ্চলে উৎপাদিত হয়, সেখান থেকে সরকারি উদ্যোগে তা সংগ্রহ করে উত্তরবঙ্গের সুফল বাংলা স্টলগুলির মাধ্যমে বিক্রি করা হবে। একইভাবে জলপাইগুড়ির সুগন্ধি কালোনুনিয়াও জায়গা পাবে সুফল বাংলার স্টলগুলিতে। এছাড়াও রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে সুস্বাদু বিভিন্ন অপচনশীল খাদ্যশস্যে সমৃদ্ধ করে সুফল বাংলার স্টলগুলিকে ক্রেতাদের কাছে আরও আকর্ষণীয় করে তুলতে উদ্যোগী হয়েছে প্রশাসন। একদিকে ন্যায্যমূল্য, অপরদিকে খাঁটি খাদ্যসামগ্রী সুফল বাংলা স্টল থেকে পাবেন ক্রেতারা। সুব্রতকুমার দে বলেন, সবকিছুই যেভাবে এগোচ্ছে, তাতে খুব শীঘ্রই নির্ভেজাল অপচনশীল নানা পছন্দের খাদ্যসামগ্রী ন্যায্যমূল্যে উত্তরের সুফল বাংলা স্টলগুলি থেকে কিনতে পারবেন ক্রেতারা।