শুভেন্দুর সক্রিয়তায় প্রশ্ন গেরুয়া শিবিরে

283

স্বরূপ বিশ্বাস, কলকাতা: বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ ভূস্বর্গে ঘুরছেন। তিনি ইতিমধ্যে লাদাখের লে-সোলার কলোনিতে একটি অক্সিজেন পার্লার উদ্বোধন করেছেন। লে-লাদাখ ঘুরে কাশ্মীর হয়ে দিল্লি পৌঁছোবেন রবিবার। সোমবার থেকে সংসদের বাদল অধিবেশন শুরু হচ্ছে। অধিবেশন চলাকালীন দিল্লিতেই থাকবেন তিনি। তাঁর লম্বা এই অনুপস্থিতিতে রাজ্যে সংগঠনের দেখভালে শুভেন্দুর সক্রিয় হয়ে ওঠা নিঃসন্দেহে তাৎপর্যপূর্ণ। এই ব্যাপারে রাজ্য সভাপতি দিলীপ তাঁর অনুপস্থিতিতে শুভেন্দুকে বাড়তি দায়িত্ব দিয়ে গিয়েছেন কিনা সরকারিভাবে তা জানা যায়নি। লাদাখে অবস্থানরত দিলীপের সঙ্গে শনিবার এই নিয়ে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাঁকে ফোনে পাওয়া যায়নি।

বঙ্গ বিজেপি প্রধান দিলীপ ঘোষ যখন লাদাখ-কাশ্মীরে ঘুরে বেড়াচ্ছেন, তখন রাজ্যের একাধিক জেলায় সাংগঠনিক বৈঠক করছেন বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। রাজ্য সভাপতির অনুপস্থিতিতে শুভেন্দুর এই সক্রিয়তা নিয়ে স্বভাবতই প্রশ্ন উঠেছে গেরুয়া শিবিরের অন্দরে। এমনকি রাজ্য সংগঠন পরিচালনায় শুভেন্দুর পাশাপাশি দলের আরও দুই শীর্ষনেতা শমীক ভট্টাচার্য ও অমিতাভ চক্রবর্তীর সক্রিয় হয়ে ওঠাটাও দলের নেতা-কর্মীদের মধ্যে কৌতূহলের সৃষ্টি করেছে। যদিও শমীক রাজ্য দলের প্রধান মুখপাত্র ও অমিতাভ দলের রাজ্য সাংগঠনিক সম্পাদক। দলের কাজে তাঁদের দুজনের সক্রিয় হওয়াটা মোটেই বেমানান নয়। সেদিক থেকে রাজ্যে দলের সাংগঠনিক কাজে শুভেন্দুর জড়িয়ে যাওয়াটা নিঃসন্দেহে বাড়তি কৌতূহলের বিষয় বলে মনে করা হচ্ছে। বিরোধী দলনেতা হিসেবে বিধানসভায় বিজেপি পরিষদীয় দলকে নেতৃত্ব দেওয়ার পাশাপাশি রাজ্যে সাংগঠনিক কাজে তাঁর ঢুকে পড়া নিয়ে নানা ব্যাখ্যা শুরু হয়েছে রাজনৈতিক মহলে।

- Advertisement -

এরই মধ্যে শুভেন্দু গত শুক্রবার হুগলি জেলায় দলের সাংগঠনিক বৈঠকে যোগ দেন মুখ্য বক্তা হিসেবে। তার আগের দিন হাওড়া গিয়ে দলের জেলা সংগঠনের নেতাদের সঙ্গে মিলিত হয়ে বৈঠক করেন। আগামী কয়েকদিনে শুভেন্দুর এইরকম কর্মসূচি রয়েছে বলেই দলীয় সূত্রে খবর। সাধারণত দলের জেলা সাংগঠনিক বৈঠকগুলিতে মুখ্য কার্যকর্তা হিসেবে দিলীপই হাজির থাকেন। এতদিন প্রায় সব জেলায় তাই হয়ে এসেছে। ফলে দিলীপের অনুপস্থিতিতে শুভেন্দুর  অতিসক্রিয়তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে পর্যবেক্ষক মহলে।

রাজ্যে নির্বাচন পরবর্তী হিংসা নিয়ে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের বিস্ফোরক রিপোর্ট প্রকাশ্যে এসেছে। চাঞ্চল্যকর এই পরিস্থিতিতে রাজ্য সভাপতি দিলীপের বেড়াতে যাওয়া নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। যেখানে ভোটের ফলপ্রকাশের পর থেকে এইসব ইস্যু নিয়ে তিনি সোচ্চার ছিলেন। জেলায় জেলায় ঘুরছিলেন। যদিও এই প্রসঙ্গে প্রাক্তন সংঘ প্রচারক দিলীপ লাদাখ যওয়ার আগে বলে গিয়েছেন, দল দায়িত্ব দিয়েছে তাই কাজ করছি। যখন দল বলবে আমাকে প্রযোজন নেই তখন পুরোনো কাজে ফিরে যাব। নিঃসন্দেহে তাৎপর্যপূর্ণ তাঁর এই মন্তব্য।