এইমস হারানোর যন্ত্রণা নিয়ে ফুঁসছে উত্তরের সিঙ্গুর

231

বিশ্বজিৎ সরকার, রায়গঞ্জ : রায়গঞ্জ। উত্তরবঙ্গের এই ছোট্ট শহরটি বরাবর কংগ্রেসের শক্ত ঘাঁটি বলেই পরিচিত। আবার রায়গঞ্জ শহরটি প্রিয়রঞ্জন দাশমুন্সীর নামের সঙ্গে একইসঙ্গে উচ্চারিত। হালফিলে অবশ্য রাজনীতির আঙিনায় রায়গঞ্জকে বলা হচ্ছে উত্তরবঙ্গের সিঙ্গুর। সিঙ্গুরের সঙ্গে রায়গঞ্জের কোথাও যেন এক অদৃশ্য মিল রয়েছে। যদি তৃণমূলের জমি আন্দোলনের জেরে সিঙ্গুর টাটার ন্যানো কারখানা হারিয়ে থাকে, তাহলে রায়গঞ্জ হারিয়েছে এইমস হাসপাতাল। আসন্ন ভোটে তাই রায়গঞ্জ কেন্দ্রে এবার শাসকদল তৃণমূলকে মোকাবিলা করতে হবে শহরবাসীর এইমস আবেগের সঙ্গে।

রাজ্যে পালাবদলের পর মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় শিলিগুড়িতে উত্তরকন্যা তৈরি করেছেন। ভোটের বাজারে উত্তরবঙ্গের জেলাগুলিতে শাসকের এমন গুচ্ছ গুচ্ছ কৃতিত্ব ফিকে হয়ে যাচ্ছে কুলিক নদীর তীরে এসে। ফলে এইমস ইস্যুতে চাপা একটা অস্বস্তি রয়ে যাচ্ছে। তৃণমূলের জেলা সভাপতি কানাইয়ালাল আগরওয়াল বলেন, এইমসের জন্য স্বেচ্ছায় জমি দিতে ইচ্ছুক চাষিদের হলফনামা জেলা শাসকের কাছে জমা দিতে বলেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। কিন্তু একটা হলফনামাও জমা পড়েনি। এখন ভোটের মুখে বিজেপি নিজেদের ব্যর্থতা ঢাকতে নোংরা রাজনীতি করছে। এখানে কংগ্রেসের ব্যর্থতায় এইমস হয়নি।

- Advertisement -

তৃণমূলের এই রমরমার বাজারে রায়গঞ্জ কিন্তু ব্যতিক্রম। মালদা, মুর্শিদাবাদের মতো এই জেলায় তৃণমূলের সংগঠন এখনও তেমন জোরালো নয়। এমনটাই দাবি বিরোধীদের। তৃণমূলের জেলা সভাপতি কানাইয়ালাল আগরওয়াল সংগঠন তৈরি করতে পরিশ্রম করেছেন বটে। ২০১৮ সালের পঞ্চায়েত ভোটে জেলা পরিষদ দখল করেছে তৃণমূল। উত্তর দিনাজপুর জেলার অধিকাংশ পঞ্চায়েত সমিতিই তৃণমূলের দখলে। অধিকাংশ গ্রাম পঞ্চায়েতও তৃণমূলের দখলে। এবার বিধানসভা ভোটের প্রার্থী এখনও ঘোষণা হয়নি। রাজ্যের বাকি জেলার মতো এই জেলাতেও উন্নয়নকে হাতিয়ার করে ভোট চাইছে সব দল। কানাইয়ালাল আগরওয়াল বলেন, গত ১০ বছরে রায়গঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয় হয়েছে, সুপার স্পেশালিটি হাসপাতাল হয়েছে। রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ তৈরি হয়েছে। তেমনি প্রিয়দার স্বপ্নের রায়গঞ্জ-বারসই রাস্তা তৈরি হবে।

রায়গঞ্জের বিধায়ক  মোহিত সেনগুপ্ত বলেন, প্রিয়দা হাতে করে রায়গঞ্জে এইমস এনেছিলেন। কিন্তু তৃণমূলের ষড়যন্ত্রে রায়গঞ্জ সেই এইমস হারিয়েছে। তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই ইস্যুতে দ্বিচারিতা করেছেন। এখানে সুপার স্পেশালিটি হাসপাতাল ভবন তৈরি হয়েছে। রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ তৈরি হয়েছে, কিন্তু ডাক্তার নেই। রায়গঞ্জের মানুষকে বোকা বানানোর চেষ্টা হচ্ছে। জেলায় শিল্প হয়নি। উলটে সিদ্ধার্থশংকর রায়ে সময়ে তৈরি হওয়া স্পিনিং মিলটিও তৃণমূলের রাজত্বে বন্ধ হয়ে গিয়েছে। মালদায় গনি খানের নাম যে শ্রদ্ধার সঙ্গে উচ্চারিত হয়, ঠিক একইভাবে প্রিয়রঞ্জন ও রায়গঞ্জ সমার্থক হয়ে উঠেছে। রাধিকাপুর এক্সপ্রেস, এইমস, রায়গঞ্জ ভবন (কলকাতায়), সবই প্রিয়দার উদ্যোগে তৈরি। তিনি বলেন, ভোটের ময়দানে প্রিয়রঞ্জন দাশমুন্সী রায়গঞ্জে নেই তো কী হয়েছে? এই শহরে প্রিয়রঞ্জনের এমনই মহিমা যে তৃণমূলকেও বলতে হচ্ছে তারা জিতলে প্রিয়দার স্বপ্ন রায়গঞ্জ-বারসই রোড বাস্তবায়িত করবে। সিপিএমের জেলা সম্পাদক অপূর্ব পাল বলেন, উত্তর দিনাজপুর জেলায় একাধিক উন্নয়নমূলক কাজ হয়েছে। বেশকিছু কাজ রাজ্যের শাসকদল ও কেন্দ্রের অসহযোগিতায় করা যায়নি। বিজেপির জেলা সভাপতি বিশ্বজিত্ লাহিড়ি বলেন, বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি জিতলে এইমস হবে রায়গঞ্জেই। রায়গঞ্জ-বারসই সড়কও তৈরি হবে।