রোগী পরিষেবা ঘিরে টাকা লেনদেনের অভিযোগ রায়গঞ্জ মেডিকেলে

96

রায়গঞ্জ: রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল শুধুমাত্র রায়গঞ্জই নয়, হেমতাবাদ, ইটাহার, করণদিঘি, দক্ষিণ দিনাজপুর, মালদার চাঁচল সহ পার্শ্ববর্তী রাজ্য বিহারের বড় অংশের রোগীদেরও ভরসা। দৈনিক গড়ে প্রায় দুই হাজার রোগী এখানে চিকিৎসা করাতে আসেন। নিখরচায় সমস্ত পরিষেবা মেলার কথা থাকলেও অনেক ক্ষেত্রেই টাকার খেলা চলে বলে অভিযোগ। প্রসূতিদের লিফট ব্যবহার করতে গেলেও যেমন টাকা দিতে হয়, তেমনি প্রসবের পর টাকা ছাড়া ভালো পরিষেবা মেলেনা বলেও অভিযোগ উঠেছে। রোগীর জন্য ট্রলি দরকার হলেও টাকা না দিয়ে উপায় নেই। সামান্য কাজের জন্য হাসপাতালের সাফাইকর্মী ৫০০ টাকা দাবি করেন বলে জানিয়েছেন রোগীরা।

রায়গঞ্জের বীরনগরের বাসিন্দা পেশায় টোটো চালক দীপক বর্মন জানান, টাকা ছাড়া কোনও পরিষেবা হাসপাতালে মেলে না। মুখে বলা হয় সরকারি হাসপাতাল, টাকা লাগবে না। কিন্তু প্রতি পদক্ষেপে টাকা দিতে হয়। হেমতাবাদের এক রাজমিস্ত্রি হজরত আলির বক্তব্য, তাঁর বাবা রায়গঞ্জ মেডিকেলে ভর্তি ছিলেন। অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে সিসিইউ বিভাগে রাখা হয়। সেখানে রোগীর পরিজনদের ঢোকার নিয়ম নেই। কিন্তু হাতে ২০০ টাকা ধরিয়ে দিলেই নিয়ম পালটে যায়। আবার এখানে সাফাই কর্মীদের চার্জ আলাদা। হাতে ১০০ টাকা গুঁজে দিলে দিনে তিনবার পরিষ্কার হয়। টাকা না দিলে একবার। যদিও এই বিষয়ে রায়গঞ্জ মেডিকেলের নোডাল অফিসার বিপ্লব হালদারের বক্তব্য, যাঁদের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে তাঁরা মূলত চুক্তিভিত্তিক কর্মী। বিষয়টির ওপর নজর রাখা হচ্ছে।

- Advertisement -