বৃষ্টির জলে ভাসল রায়গঞ্জ মেডিকেল চত্বর, বাড়ছে উদ্বেগ

42
ফাইল ছবি

রায়গঞ্জ: ফের বৃষ্টির জলে ভাসল রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল চত্বর। জলে থৈ থৈ অবস্থা গোটা মেডিকেল কলেজ চত্বর। এরমধ্যেই চলল করোনার পরীক্ষা। করোনা পরীক্ষার কিট বৃষ্টির জলে মিশে একাকার হয়ে গিয়েছে বলে অভিযোগ। ফলে যারা এদিন পরীক্ষা করতে এসেছিল তাঁরা এই নিয়ে রীতিমতো আতঙ্কে ভুগছেন। জল থেকে করোনা ছড়িয়ে পরার আশঙ্কা তৈরি হয়েছে হাসপাতালে করোনা পরীক্ষা করাতে আশা রোগীদের মধ্যে। মঙ্গলবার সকালে ঘণ্টাখানেকের বৃষ্টিতেই হাসপাতালের আই ব্যাংক যেখানে করোনা পরীক্ষা কেন্দ্র খোলা হয়েছে সেখানে রীতিমতো জল জমে যায়।

সেই জলের মধ্যে দাঁড়িয়েই রোগীদের করোনা পরীক্ষা করাতে হয়। এদিন করোনা পরীক্ষা করাতে আশা প্রায় শতাধিক রোগী ছিল।‌ জল জমে গেলেও সেই জলের মধ্যে দাঁড়িয়েই তারা করোনা পরীক্ষা করান। রোগীর আত্মীয়দের নজরে এসেছে সেই জলের মধ্যেই করোনা পরীক্ষার কিট, মাস্ক, ব্যবহৃত গ্লাভস গুলো ফেলা হচ্ছে। এদিন রায়গঞ্জ শহর ও শহরতলী এলাকা থেকেও অনেক মানুষ করোনা পরীক্ষা করার জন্য এসেছিল। অনেকেই করোনার উপসর্গ নিয়ে পরীক্ষা করাতে আসেন। আবার অনেকেই সামান্য জ্বরে সন্দেহ হওয়ায় করোনা পরীক্ষা করাতে আসেন। তবে এর মধ্যে কতজন করোনা আক্রান্ত সেই তথ্য এখনও উঠে আসেনি।

- Advertisement -

পরীক্ষা করাতে আশা রোগীদের বক্তব্য, রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের মূল রাস্তায় যে হারে জল জমে রয়েছে সুস্থ হতে এসে আরও অসুস্থ হয়ে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। শুধু করোনা পরীক্ষা করতে আসাই নয় অন্যান্য রোগীদের এক্সরে সিটিস্ক্যান সহ অন্যান্য পরীক্ষা করতেও এদিন চরম ভোগান্তির শিকার হতে হয়। রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজের নোডাল অফিসার বিপ্লব হালদার বলেন, ‘ওই জল নিষ্কাশনের জন্য ড্রেনের সিস্টেম করা হয়েছে। তবু কেন জল দাঁড়িয়ে রয়েছে। সেবিষয়ে খোঁজখবর নিচ্ছি।’ রোগীর পরিজনদের অভিযোগ, জল নিষ্কাশনের ব্যবস্থা না থাকার জন্যই এই চরম ভোগান্তি। হাসপাতালে সুস্থ হতে এসে অসুস্থ হয়েই ফিরে যেতে হবে।