ফের কর্মবিরতিতে রায়গঞ্জ মেডিকেলের চুক্তিভিত্তিক স্বাস্থ্যকর্মীরা

113

রায়গঞ্জ: ১৯ তারিখের মধ্যে বেতন না পাওয়ায় ফের কর্মবিরতি শুরু করল সাফাইকর্মী, সিকিউরিটি গার্ড ও স্বাস্থ্যকর্মীরা। শনিবার রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজের মূল ফটকের সামনে ধর্নায় বসেন স্বাস্থ্যকর্মীরা। ‌এরপর মিছিল করে অধ্যক্ষের ঘরে গিয়ে অভিযোগ জানান।

এদিন নিরাপত্তারক্ষীদের কর্ণধার বিকি সাহানি বলেন, ‘১৯ তারিখে ২৯৪ জন বেসরকারি কর্মীর বেতন ঢোকার কথা ছিল। সেটা না হওয়ায় আন্দোলনে নেমেছে। এখানে আমার কিছু করার নেই। আমি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি।’ রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজের ওয়ার্ড গার্ল ইন্দ্রানী ঝাঁ সাহা বলেন, ‘১৯ তারিখ পর্যন্ত আমাদেরকে সময় দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু এখনও পর্যন্ত বকেয়া টাকা ঢোকেনি সেই কারণেই আমরা কর্মবিরতি ও বিক্ষোভ করতে বাধ্য হয়েছি।’ নিরাপত্তারক্ষীদের উত্তরবঙ্গ জোনের প্রধান প্রণব মিশ্র বলেন, ‘২৯৪ জন কর্মীর টাকা কিছুক্ষণের মধ্যেই ঢুকে যাবে। তবে যে পরিমাণ টাকা কাটা হয়েছে তার থেকে কম পরিমাণ দেওয়া হবে। এই মুহূর্তে পর্যাপ্ত টাকা আমাদের কাছে নেই। যাদের দুই হাজার টাকা কেটে নেওয়া হয়েছে তাদের এক হাজার টাকা করে দেয়া হবে। যাদের এক হাজার টাকা করে কেটে নেওয়া হচ্ছে তাদের ৫০০ টাকা করে দেওয়া হবে।’

- Advertisement -

উল্লেখ্য, মাসের বেতন থেকে নিয়ম বহির্ভূতভাবে হাজার টাকা বেশি কেটে নেওয়ার প্রতিবাদে ১০তারিখ রাত থেকে কাজ বন্ধ করে বিক্ষোভ দেখায় মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্বাস্থ্যকর্মী থেকে শুরু করে ওয়ার্ড বয়, ওয়ার্ড গার্ল সাফাইকর্মী, সিকিউরিটি গার্ড সকলে। এরপর জেলাশাসক এবং পুলিশ সুপারকে ঘিরেও তীব্র বিক্ষোভে ফেটে পড়ে মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চুক্তিভিত্তিক স্বাস্থ্যকর্মীরা। এরজেরে মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্বাস্থ্য পরিষেবা সম্পূর্ণ বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছিল।

ফের এদিন কর্মবিরতির ফলে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ল রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজের পরিষেবা। রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজের সহকারী অধ্যক্ষ প্রিয়ঙ্কর রায় বলেন, ‘মেডিকেল কলেজের পরিষেবায় যাতে বিঘ্ন না ঘটে সেই কারণে স্বাস্থ্যকর্মী সাফাই কর্মী ওয়ার্ড বয় ওয়ার্ড গার্লদের অনুরোধ করা হয়েছে। যদিও সমস্যার সমাধান সূত্র মেলেনি।’