সুভাষ বর্মন, ফালাকাটা : পাঁচ মাসের ব্যবধানে ফালাকাটা শহর লাগোয়া দোলং সেতুর রেলিং ফের ভেঙে গিয়েছে। ফালাকাটা-সোনাপুর জাতীয় সড়কের দুর্বল এই কাঠের সেতু নিয়ে নিত্যযাত্রী ও এলাকাবাসীর মধ্যে ক্ষোভ ছড়িয়েছে। বেহাল সেতুতে রোজ যানজট লেগে থাকে। বিপজ্জনকভাবে যাতায়াত করতে বাধ্য হওয়ায় দুর্ঘটনার আশঙ্কায় ভুগছেন তাঁরা। এক সপ্তাহ আগে দুর্ঘটনায় রেলিং ভেঙে যায়। এখনও তা মেরামত না হওয়ায় সড়ক কর্তৃপক্ষের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। দ্রুত সেতু সংস্কারের দাবি তুলেছেন এলাকাবাসী।

আলিপুরদুয়ার থেকে ফালাকাটা ঢোকার মুখে রয়েছে দোলং সেতু। এর কাছেই রয়েছে ফালাকাটা-২ গ্রাম পঞ্চায়েত অফিস ও কিষান মান্ডি। জাতীয় সড়ক কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা গিয়েছে, ঘোষপুকুর থেকে ধূপগুড়ি হয়ে ফালাকাটা শহরের পাশ দিয়ে আলিপুরদুয়ারের সলসলাবাড়ি পর্যন্ত ইস্ট-ওয়েস্ট করিডর তৈরি হবে। দোলং সেতুটি ইস্ট-ওয়েস্ট করিডরের মধ্যে পড়ছে না বলে জানিয়েছে জাতীয় সড়ক কর্তৃপক্ষ। এলাকাবাসীর অভিযোগ, এই রাস্তায় থাকা চরতোর্ষা ডাইভারশন, বুড়িতোর্ষা ও সনজয় সেতু মাঝেমধ্যে সংস্কার করা হলেও দোলং সেতু নিয়মিত সংস্কার করা হয় না। এনএইচ-১০ ডিভিশনের তরফে গত জুন মাসে দোলং সেতু সংস্কার করা হয়। কিন্তু পাঁচ মাসের মধ্যে দুর্ঘটনার ফলে আবার রেলিং ভাঙলেও তা এখনও সারাই হয়নি।

জোড়াই, বারবিশা, শামুকতলা, আলিপুরদুয়ার, কোচবিহার, জলপাইগুড়ি, শিলিগুড়ির মতো অনেক দূরপাল্লার যাত্রীবাহী ও পণ্যবাহী যানবাহন চলাচল করে দোলং সেতুর উপর দিযে পাশে কিষান মান্ডি থাকায় কৃষক ও ব্যবসায়ীরাও নিয়মিত এই সেতু ব্যবহার করেন। ফালাকাটায় যাওয়ার জন্য আশেপাশের গ্রামের অনেক বাসিন্দা রোজ এই সেতু দিয়ে যাতায়াত করেন। তাই দ্রুত সেতুর রেলিং সারাইয়ের দাবি তুলেছেন তাঁরা। কালীপুর গ্রামের বাসিন্দা সমীর বালো বলেন, কয়েকদিন আগে গাড়ির ধাক্কায় দোলং সেতুর রেলিং ভেঙে গিয়েছে। এই কারণে সেতুর দুদিকে প্রায়ই যানজট লেগে থাকে। দক্ষিণ পারঙ্গেরপাড়ের মৃণালকান্তি রায় বলেন, সাইকেল ও মোটরবাইক আরোহীদের বিপদ বেশি। রেলিং ভাঙার ফলে যেকোনো মুহূর্তে যে কেউ নদীতে পড়ে যেতে পারেন। ফালাকাটা-২ গ্রাম পঞ্চায়েছের উপপ্রধান চঞ্চল অধিকারী বলেন, প্রতিবছরই কখনও সেতুর রেলিং, কখনও পাটাতন ভেঙে যায়। দুর্ঘটনার আশঙ্কা লেগেই থাকে। সড়ক কর্তৃপক্ষের উচিত ভালোভাবে সেতুটি সংস্কার করা। ফালাকাটা পঞ্চায়েত সমিতির পূর্ত কর্মাধ্যক্ষ সঞ্জয় দাস বলেন, বিষয়টি আমাদের এক্তিয়ারের মধ্যে পড়ে না। তবে দোলং সেতু দ্রুত সংস্কারের দাবি এনএইচ-১০ ডিভিশনকে জানানো হবে। আলিপুরদুয়ারের এনএইচ-১০ ডিভিশনের এগ্জিকিউটিভ ইঞ্জিনিয়ার শুভায়ু বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, এক সপ্তাহ আগে একটি দুর্ঘটনার ফলে সেতুর রেলিংযে একাংশ ভেঙেছে। বিষয়টি সম্পর্কে আমরা জানি। টেন্ডার হয়ে গিয়েছে। দ্রুত সেতুর রেলিং মেরামত করা হবে।