বড়দিন থেকেই পাহাড়ে টয়ট্রেন চালুর সিদ্ধান্ত রেলের

শিলিগুড়ি : দীর্ঘ টালবাহানার পর অবশেষে ২৫ ডিসেন্বর থেকে পাহাড়ে টয়ট্রেন চলবে। রাজ্য সরকারের সবুজ সংকেত মিলতেই টয়ট্রেন চালানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে দার্জিলিং হিমালয়ান রেলওয়ে (ডিএইচআর)। রেল সূত্রে খবর, আপাতত তিন জোড়া জয় রাইড দিয়ে পরিষেবা শুরু করা হচ্ছে। দার্জিলিং থেকে ঘুম পর্যন্ত এই জয় রাইড পরিষেবা মিলবে বলে জানিয়েছেন ডিএইচআর ডিরেক্টর একে মিশ্রা। তিনি বলেন, রাজ্যের কাছে আমরা পুজোর আগে অনুমতি চেয়েছিলাম। সেই সময় থেকেই আমরা ট্রেন চালাতে প্রস্তুত ছিলাম। এবার অনুমতি পাওয়া গিয়েছে। তাই ২৫ ডিসেম্বর থেকে করোনা বিধি মেনেই টয়ট্রেন চালানো হবে। আপাতত জয় রাইড দিয়ে পরিষেবা শুরু করা হচ্ছে। উত্তর-পূর্ব সীমান্ত রেলের মুখ্য জনসংযোগ আধিকারিক শুভানন চন্দ বলেন, ফার্স্ট ক্লাস কোচ দিয়ে একটি স্টিম এবং দুটি ডিজেল ইঞ্জিনের ট্রেন চালানো হবে। তার মধ্যে একটি ফার্স্ট ক্লাস ভিস্তা ডোম কোচ থাকবে।

করোনা মহামারির কারণে গত মার্চ থেকে দার্জিলিংয়ে টয়ট্রেন পরিষেবা বন্ধ ছিল। কিন্তু পরিস্থিতি ধীরে ধীরে স্বাভাবিক হতে থাকলে গত অক্টোবর মাসের মাঝামাঝি সময়ে পাহাড়ে টয়ট্রেন চালাতে চেয়ে রাজ্যকে চিঠি দেয় রেল। তৎকালীন জেলা শাসক এস পন্নমবলমের মাধ্যমে নবান্নে চিঠি পাঠানো হয়। কিন্তু রাজ্যের উত্তর না মেলায় পরিষেবা বন্ধই রাখা হয়। ফলে পর‌্যটন মরশুমে পর্যটকদের টয়ট্রেন না চড়েই ফিরতে হচ্ছিল। এই পরিস্থিতিতে ফের রেলের তরফে রাজ্যকে চিঠি দেওয়া হয়। পর্যটন ব্যবসাযীরা রাজ্যের পর্যটনমন্ত্রীর কাছেও বিষয়টি নিয়ে দরবার করেন। এরপরেই পর্যটনমন্ত্রী গৌতম দেব তাঁর দপ্তরের সচিবকে বিষয়টি দেখতে নির্দেশ দেন। সেইমতো অবশেষে রাজ্যের তরফে রেলকে টয়ট্রেন চালানোর অনুমতি দেওয়া হয়েছে। রাজ্যের অনুমতি পেয়ে ২৫ ডিসেম্বর থেকে তিনটি জয় রাইড চালানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে রেল। জানা গিয়েছে, ৫২৫৯৪ স্টিম লোকোমটিভ সকাল ৯টা ২৫ মিনিটে ফার্স্ট ক্লাস কোচ নিয়ে ছুটবে। যার ভাড়া হবে ১,৫০০ টাকা। এছাড়াও ৫২৫৯৭ ডিজেল লোকোমটিভ বেলা ১২টায় ফার্স্ট ক্লাস কোচ নিয়ে চলবে। যার ভাড়া হবে ১,০০০ টাকা। অপর একটি ৫২৫৯৮ ফার্স্ট ক্লাস ভিস্তা ডোম কোচ নিয়ে দুপুর দেড়টায় রওনা হবে। যার ভাড়া হবে ১,৬০০ টাকা। রেলের তরফে জানানো হয়েছে, পর্যটকের সংখ্যা বাড়লে টয়ট্রেনের সংখ্যাও বাড়ানো হবে। এদিকে, টয়ট্রেন চলার খবরে খুশি পর্যটন ব্যবসায়ীরা। পর্যটন ব্যবসায়ী সম্রাট সান্যাল বলেন, আমরা দীর্ঘদিন ধরে চাইছিলাম টয়ট্রেন চালানো হোক। অবশেষে রাজ্য এবং রেল বিষয়টি নিয়ে উদ্যোগী হয়েছে, এটা খুবই খুশির খবর।

- Advertisement -