জলপাইগুড়ি, ১৮ মে : জলপাইগুড়ি রাজবাড়ির ঐতিহ্যশালী মনসামন্দিরের বিগ্রহ উলটে পড়ে থাকার ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়াল। শনিবার সকালে ঘটনাটি প্রথম নজরে আসে রাজবাড়ি পার্কে প্রাতঃভ্রমণ করতে আসা শহরের বাসিন্দাদের। ঠাকুরের প্রতিমা উলটে দেওয়ার পাশাপাশি পার্কে থাকা শিশুদের মনোরঞ্জনের জন্য বন্যপ্রাণীর ফাইবারের মূর্তি ভাঙা হয়েছে। পার্কে নৈশপ্রহরী থাকার পরেও এমন ঘটনায় তাদের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। রাজবাড়ি দিঘির এক প্রান্তে বৈকুন্ঠপুর রাজবাড়ির প্রাচীন মনসা মন্দিরটি। এদিন সকালে পার্কে এসে স্থানীয় বাসিন্দাদের নজরে আসে মন্দিরের দরজা খোলা। দরজার তালা ভাঙা অবস্থায় মন্দিরের বারান্দায় পড়ে রয়েছে ।  বাসিন্দাদের নজর পড়ে মন্দিরের ভেতরে থাকা মনসা মূর্তির দিকে। ঠাকুরের প্রতিমাটি উলটে পড়ে রয়েছে। হইচই পড়ে যায় এলাকায়। এরপর দেখা যায় রাজবাড়ি দিঘির ওপর থাকা তিস্তাবুড়ির মূর্তিটি উধাও। দেখা যায়, পার্কের ভিতরে থাকা ফাইবারের তৈরি শিম্পাঞ্জির মডেলটির একট পা ভাঙা। রাজবাড়ির পুরোহিত শিবু ঘোষাল বলেন, ‘স্থানীয় বাসিন্দাদের কাছ থেকে খবর পেয়ে এসে দেখি মন্দিরের দরজার তালা ভাঙা। ভেতরে থাকা মনসা মূর্তিটি উলটে ফেলে দেওয়া হয়েছে। শুক্রবার সন্ধ্যার সময় আমি পুজো করে গিয়েছি মন্দিরে। পার্কে নিরাপত্তা রক্ষী থাকার পরেও এমন ঘটনা কীভাবে ঘটল বুঝতে পারছি না।’  পুরসভার পক্ষ থেকে পার্কে সিসি ক্যামেরা লাগানো রয়েছে। সেগুলো বৃহস্পতিবার ঝড়ের পরে বর্তমানে কতটা কার্যকর রয়েছে তা নিয়ে সন্দেহে রয়েছে। দুষ্কৃতীদের ফুটেজ পাওয়া যাবে কিনা তাই নিয়ে চিন্তায় রয়েছে পুলিশও।

অন্যদিকে, জলপাইগুড়ি জেলা হাসপাতাল চত্বরে মরিমাই মন্দিরে মূর্তির হাত ভাঙা হয়েছে বলেও অভিযোগ উঠেছে। ঘটনার তদন্তে নেমে একজনকে আটক করেছে পুলিশ।

ছবি- মনসামন্দিরে উলটে পড়ে থাকা বিগ্রহ।