পার্শ্বশিক্ষকদের অবস্থান মঞ্চে রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়

104

কলকাতা: সমকাজে সমবেতন ও চাকুরীতে স্থায়ীকরণ সহ কয়েকটি দাবি-দাওয়ার ভিত্তিতে রাজ্যের পার্শ্বশিক্ষকেরা যে অবস্থান-বিক্ষোভ চালিয়ে যাচ্ছেন তা শনিবার ৫৮তম দিনে পড়ল। এদিন সদ্য তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেওয়া রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় ওই শিক্ষকদের মঞ্চে গিয়ে হাজির হন। সেখানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে রাজীববাবু বলেন, ‘আগামী দিনে ক্ষমতায় আসলে তাঁরা পার্শ্বশিক্ষকদের দাবিদাওয়াগুলো অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে বাস্তবায়িত করার উদ্যোগ নেবেন।‘ সেই সঙ্গে তিনি রাজ্য সরকারের সমালোচনা করে বলেন, ‘২০১০ সালে ওই পার্শ্বশিক্ষকদের দাবি দাওয়ার বিষয়ে বর্তমান মুখ্যমন্ত্রী সিঙ্গুরের ব্যাপার সহ পার্শ্বশিক্ষকদের বিষয়টিও ধাপে ধাপে পূরণ করবেন বলছিলেন। কিন্তু সেই আশ্বাস রূপায়িত হয়নি আজ পর্যন্ত।‘

এদিন তিনি বলেন, ‘অন্যান্য রাজ্যগুলির যেমন কেন্দ্রের কাছ থেকে স্পেশাল অর্থনৈতিক প্যাকেজ আদায় করে আনতে সমর্থ হচ্ছেন সেখানে আমাদের বর্তমান রাজ্য সরকার কেন্দ্রের সঙ্গে ঝগড়া করে তার কানাকড়িও আনতে পারছে না।‘ বলেন, ‘কেন্দ্র থেকে যে টাকা রাজ্য সরকার পাচ্ছে সেটা অন্য খাতে ব্যয় করে ফেলছে বলেই যে কারণে টাকাটা দেওয়া হচ্ছে সেই কাজ হচ্ছে না।‘

- Advertisement -

এদিন ওই সভামঞ্চ থেকে রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী প্রশ্ন তোলেন, ‘আজকে ভোটের মুখে এসে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মা-ক্যান্টিন চালু করে ৫ টাকায় রাজ্যের দরিদ্র মানুষদের ডিম ভাত খাওয়ানোর প্রকল্পের কথা বলছেন। মুখ্যমন্ত্রীর যেখানে দাবি করছেন ভোটের আগে তিনি যা যা প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন তা পূরণ করে দিয়েছেন। তাহলে আজ এই ১০ বছর বাদে নির্বাচনের মুখে দাঁড়িয়ে দুয়ারে সরকার কর্মসূচি নিতে হচ্ছে কেন?’

সদ্য রাজ্য বিধানসভায় পেশ করা ভোট-অন-অ্যাকাউন্টের বিষয় কটাক্ষ করে তিনি বলেন, ‘মুখ্যমন্ত্রী মন্তব্য করেছেন যে তিনি ট্রেডমিল করার সময় ওই ভোট-অন-অ্যাকাউন্ট বা বাজেট তৈরি করেছেন। বাজেট একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ট্রেডমিল করতে করতে সেই বাজেট তৈরি করা হয়ে থাকলে তা তো দলের নির্বাচনী ইশতেহারের মতই হবে।‘

অবস্থান বিক্ষোভে শামিল হওয়া পার্শ্বশিক্ষকদের দুরবস্থার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন এতদিন যাবৎ তাঁরা অবস্থান বিক্ষোভ চালিয়ে যাচ্ছেন অথচ তাদের জন্য আশপাশে কোনো শৌচালয়ের ব্যবস্থা করা হয়নি। এছাড়া তাদের অবস্থান আন্দোলনকে দুর্বিষহ করে তোলার জন্য ওই অবস্থান-বিক্ষোভস্থলের কাছেই আবর্জনার স্তুপ সৃষ্টি করা হয়েছে। তিনি বিক্ষোভকারীদের আশ্বাস দিয়ে যান যে আগামীদিনেও তিনি তাদের কাছে আসবেন।