গৃহবধূকে ধর্ষণ, যুবকের ৭ বছরের কারাদণ্ড

611

মাথাভাঙ্গা: গৃহবধূকে ধর্ষণের ঘটনায় সোমবার সাজা ঘোষণা হল মাথাভাঙ্গা অতিরিক্ত জেলা দায়রা জজের আদালতে। ২০১৬ সালে শীতলখুচি ব্লকের বড়কৈমারী গ্রাম পঞ্চায়েতের এক গৃহবধূকে ধর্ষণের অভিযোগে অভিযুক্ত সাটিমারি গ্রামের বাসিন্দা কমল বর্মনকে (৩৫) গত শুক্রবার দোষী সাব্যস্ত করে আদালত। সোমবার সাজা ঘোষণা হয়। অতিরিক্ত সরকারি কৌঁসুলি (এপিপি) রবীন্দ্রনাথ রায় বসুনিয়া জানান, কমল বর্মনের ৭ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড এবং ১০ হাজার টাকা জরিমানার সাজা শোনান মাথাভাঙ্গা অতিরিক্ত জেলা দায়রা জজ নির্বাণ খেশং। এপিপি জানান, অনাদায়ে ৬ মাস অতিরিক্ত কারাদণ্ডের নির্দেশ দেন বিচারক। এছাড়াও ডিস্ট্রিক্ট লিগাল সার্ভিস অথরিটি (ডিএলএসএ) থেকে গৃহবধূকে ৩ লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণ প্রদানের কথা বলা হয়েছে।

রবীন্দ্রনাথ রায়বসুনিয়া বলেন, ২০১৬ সালে কমল বর্মন ওই গৃহবধূর কাছ থেকে মাছ মারার জন্য কোচা (মাছ মারার যন্ত্র) ধার নিয়েছিলেন। ওইদিনই রাত সাড়ে নটা নাগাদ কোচা ফিরিয়ে দিতে এসে গৃহবধূকে বাড়িতে একা পেয়ে ভয় দেখিয়ে ধর্ষণ করে কমল বর্মন। সমস্ত ঘটনা জানিয়ে শীতলকুচি থানায় অভিযোগ দায়ের করেন ওই গৃহবধূ। আর এদিন সাজা ঘোষণা করেন বিচারক। এদিনই বিচারবিভাগীয় হেপাজতে নেওয়া হয়েছে ধর্ষণের ঘটনায় সাজাপ্রাপ্ত কমল বর্মনকে। কমল বর্মনের আইনজীবী যামিনীকুমার বর্মন বলেন, মক্কেল উচ্চ আদালতে যাবেন কিনা সে ব্যাপারে আমার সঙ্গে এখনও কথা বলেননি।

- Advertisement -