কালিয়াগঞ্জে এই বছর রথ যাবে গাড়িতে চড়ে

269

অনির্বাণ চক্রবর্তী, কালিয়াগঞ্জ : করোনার থাবায় বিশ্বজুড়ে স্তব্ধ হয়েছে সব কিছু। রথযাত্রাতেও করোনার প্রভাব পড়েছে। অন্য বছরগুলিতে কালিয়াগঞ্জের বাসিন্দারা রথের মেলা দেখতে ভিড় জমাতেন। কিন্তু করোনার কারণে এই বছর রথের মেলা হবে না বলে ঘোষণা করেছে কালিয়াগঞ্জ মহেন্দ্রগঞ্জ নাটমন্দির কমিটি। কার্যকর্তারা জানিয়েছেন, ছোট রথে নিয়ে যাওয়া হবে দেবতাদের। য়ে রথ চড়বে গাড়িতে। মেলা না হওয়ার খবর শুনে হতাশ কালিয়াগঞ্জবাসী। ছোটদের জন্য নাগরদোলা, টয়ট্রেন যেমন এই বছর মেলায় আসবে না, তেমনই বড়দের জন্য ইমিটেশন গয়নার দোকান, খাট, আলনার দোকান কিছুই বসবে না। গরম জিলিপির স্বাদ থেকে বঞ্চিত থাকবেন কালিয়াগঞ্জের বাসিন্দারা। কালিয়াগঞ্জের রথের মেলার বিশেষ আকর্ষণ লটকন ফলের দেখা মেলা ভার হবে বলে মনে করছেন অধিকাংশ বাসিন্দা।

কালিয়াগঞ্জ মহেন্দ্রগঞ্জ নাটমন্দির কমিটির কার্যকর্তা স্বপন সাহা বলেন, সরকারি নির্দেশ অনুসারে এই বছর রথের মেলা বসবে না। প্রতি বছর বড় রথে জগন্নাথ, বলরাম ও সুভদ্রার পুজো হলেও এই বছর ছোট রথেই তাঁদের পুজো সারা হবে। সম্পূর্ণ নিয়ম মেনেই পুজো হবে। আরতিও হবে। আর রথ যাতে কেউ ছুঁতে না পারেন তার জন্য রথের আশেপাশে বাঁশ দিয়ে ব্যারিকেড করা হবে। দূর থেকেই ভক্তরা সামাজিক দূরত্ব বিধি মেনে জগন্নাথ, বলরাম ও সুভদ্রাকে দেখবেন।

- Advertisement -

নাট মন্দির কমিটির আরেক কার‌্যকর্তা সুনীল সাহা বলেন, পুজোর পর ছোট রথটিকে গাড়ি করে বিবেকানন্দ মোড় ঠাকুরবাড়ি অর্থাৎ জগন্নাথ দেবের মাসির বাড়ি পৌঁছে দেওয়া হবে। সেখানে নিয়ম মেনে আট রাত থাকার পর নয় দিনের দিন সকালে পুনরায় গাড়ি করে নাটমন্দিরে ছোট রথটিকে নিয়ে আসা হবে। বর্তমান পরিস্থিতিতে আমাদের এই পরিকল্পনা আপামর কালিয়াগঞ্জবাসী মেনে নেবেন বলে মনে করি। পুরোহিত অজিত তলাপাত্র বলেন, অন্য বছরের মতো এই বছরও পুজো সঠিক নিয়ম মেনেই হবে। কালিয়াগঞ্জবাসী যাতে করোনামুক্ত থাকেন, ঠাকুরের কাছে সেটাই প্রার্থনা জানাব।

মিষ্টি বিক্রেতা রাজেন্দ্র প্রসাদ বলেন, অন্য বছরগুলিতে মেলার সময় প্রতিদিন ৪-৫ হাজার টাকার মিষ্টি বিক্রি করতাম। এই বছর মেলা না হওয়ায় ক্ষতি তো হবেই।। ঘুগনি বিক্রেতা চঞ্চল কুণ্ডু বলেন, প্রতিবার মেলায় কুড়ি থেকে ত্রিশ হাজার লোক আসে। ঘুগনি, চপ, কাটলেট, ভেলপুরি বিক্রি করে দম ফেলার ফুরসত পেতাম না। কিন্তু এই বছর মেলা হবে না। এটা জানতে পেরে স্বাভাবিকভাবেই আমাদের মন খারাপ  কালিয়াগঞ্জের এক বাসিন্দা আদিত্য সরকার বলেন, এই বছর রথের মেলা হচ্ছে না। শুনেই মনটা খারাপ হল। প্রতি বছর রথের মেলায় যেতাম। বন্ধুদের সঙ্গে ঘুরতাম। কিন্তু করোনা ঠেকাতে এই বছর বাড়িতেই থাকতে হবে। ভেবেই খারাপ লাগছে।