বিডিও অফিস চত্বরে ৭০০ টাকায় র‌্যাশন কার্ড মিলছে

2939

রণজিৎ বিশ্বাস,রাজগঞ্জ: রাজগঞ্জ ব্লক প্রশাসনের দপ্তরের সামনে টেবিল পেতে বসে ৭০০ টাকার বিনিময়ে র‌্যাশন কার্ড করে দেওয়ার চক্র সক্রিয় হয়েছে। সরকারিভাবে র‌্যাশন কার্ডের আবেদন জমা নেওয়া হচ্ছে অনলাইনে এবং কোনও ফি (টাকা) লাগছে না। সেখানে দিনের পর দিন দপ্তরের নাকের ডগায় এভাবে অবৈধ কারবার চলায় প্রশাসনের ভূমিকা নিয়ে উঠেছে প্রশ্ন। রাজগঞ্জের বিডিও এনসি শেরপা বলেন, অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

রাজগঞ্জ বিডিও অফিসে ঢোকার গেটের সামনে বেশ কয়েকটি টেবিল পেতে কিছু ফর্ম নিয়ে বসে থাকেন কয়েকজন যুবক। টেবিলগুলি কারও চোখ এড়িয়ে যাওয়ার উপায় নেই। চলে বেশ কিছু অবৈধ কারবার। প্রাচীর দেওয়া ওই দপ্তরে বিডিও অফিস ছাড়াও পঞ্চায়েত সমিতির অফিস, খাদ্য সরবরাহ দপ্তর, প্রাণীসম্পদ দপ্তর, মৎস্য দপ্তর সহ বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকাণ্ড চলে। প্রতিদিন দপ্তরের আধিকারিক ও কর্মীরা এলেও তাঁদের কি চোখেপড়ছে না? প্রশ্ন উঠেছে বিভিন্ন মহল থেকে।

- Advertisement -

শুক্রবার টেবিল নিয়ে বসে থাকা যুবকদের কাছে গ্রাহক সেজে র‌্যাশন কার্ড করার ব্যাপারে জিজ্ঞাসা করলে তাঁরা বলেন, এখন অনলাইনে র‌্যাশন কার্ডের ফর্ম জমা নেওয়া বন্ধ আছে। কিন্তু আমাদের সঙ্গে দপ্তরের যোগ আছে। তাই আমাদের কাছে ফর্ম ফিলআপ করলে ২-৩ মাসের মধ্যে নতুন র‌্যাশন কার্ড পেয়ে যাবেন। এর জন্য কিছু নথি সহ প্রতি কার্ডের জন্য ৭০০ টাকা করে লাগবে। আর যদি আপনারা অনলাইনে আবেদন করেন তা হয় বিভিন্ন কারণে বাতিল হয়ে যাবে, নয়তো ৬ মাসেও র‌্যাশন কার্ড পাবেন কি না সন্দেহ আছে। কিছুক্ষণ পরে সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে ওই যুবকদের কাছে জানতে চাইলে কোনও মন্তব্য করতে রাজি হননি। কেউ আবার টেবিল ছেড়েই সরে পড়েন।

এদিন দপ্তরে ছিলেন খাদ্য সরবরাহ দপ্তরের রাজগঞ্জ ব্লকের চিফ ইনস্পেক্টর পূরণকুমার লোহার। তিনি বলেন, যাঁরা র‌্যাশন কার্ড পাওয়ার উপযুক্ত তাঁরা অনলাইনে ফর্ম ফিলআপ করলে ডিজিটাল র‌্যাশন কার্ড পেয়ে যাবেন। ৩ নম্বর ফর্ম নতুন ডিজিটাল র‌্যাশন কার্ড, ৪ নম্বর ফর্ম পরিবারের কোনও সদস্য ডিজিটাল কার্ড না পেয়ে থাকলে এবং ১০ নম্বর ফর্ম উচ্চবিত্তদের র‌্যাশন কার্ডের জন্য। এই তিনটি ফর্মের অনলাইনে আবেদন চালু আছে। এছাড়া যাঁরা স্পেশাল কুপন পেয়েছেন তাঁদের নতুন করে আবেদন করতে হবে না। ফর্ম ফিলআপের জন্য কোনও টাকা লাগবে না। এছাড়া অফলাইনে ফর্ম ফিলআপ নেওয়া হচ্ছে না। যদি কেউ বাইরে অবৈধভাবে ফর্ম ফিলআপ করে থাকেন তা দপ্তরের বদনাম। বিষয়টি পুলিশের দেখা উচিত। আমার দপ্তরের সামনে এমন কাজ কেউ করছে কি না খোঁজ নিয়ে দেখব।

বিডিও বলেন, গেটের বাইরে কী হচ্ছে তা সবসময় জানা সম্ভব নয়। সরকারিভাবে র‌্যাশন কার্ড করার জন্য কোনও টাকা নেওয়া হয় না। তবে যদি উপভোক্তাদের কাছ থেকে টাকা নিয়ে থাকে সেব্যাপারে কেউ লিখিত অভিযোগ করলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।