পদ্মশ্রী পেয়ে ফিরলেন ‘গুরুমা’, উচ্ছ্বাস গাজোলে

111

গাজোল: গাজোলে ফিরলেন পদ্মশ্রী গুরুমা কমলি সরেন। শুক্রবার সকালে কলকাতা থেকে মালদায় ফেরেন কমলিদেবী। মালদায় একপ্রস্থ সংবর্ধনা দেওয়া হয় তাঁকে। এরপর হুডখোলা গাড়িতে চেপে দুপুরে তিনি এসে পৌঁছোন গাজোলে। গাজোল হাইস্কুল ময়দানে আদিবাসী প্রথায় তাঁকে বরণ করে নেওয়া হয়। এরপর তাঁকে উষ্ণ অভ্যর্থনা জানান গাজোলের বিভিন্ন প্রান্তের মানুষজন। চলতি বছরের ২৫ জানুয়ারি সমাজসেবামূলক কাজের জন্য পদ্মশ্রী প্রাপক হিসেবে নাম ঘোষণা করা হয় গাজোলের আদিবাসী গুরুমা কমলি সরেনের। ৯ নভেম্বর রাষ্ট্রপতি ভবনে রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ তাঁর হাতে তুলে দেন পদ্মশ্রী পুরস্কার। নিজের প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে গুরুমা বলেন, ‘পদ্মশ্রী পুরস্কারের মধ্যে দিয়ে কেন্দ্রীয় সরকার আমাকে যা সম্মান দিল, তাতে আমার কাজ করার উৎসাহ আরও বেড়ে গেল। আগামী দিনে নতুন উদ্যমে সমাজসেবামূলক কাজের মধ্যে নিজেকে জড়িয়ে রাখবো।‘
সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে গুরুমা কমলি সরেন জানিয়েছেন, তিনি মূলত আদিবাসী সম্প্রদায়ের মানুষদের নিয়ে কাজ করেন। বিশেষ করে গরিব আদিবাসী পরিবারের মেয়েদের আশ্রমে রেখে শিক্ষাদানের ব্যবস্থা করা হয়। একইসঙ্গে যে সমস্ত আদিবাসী ধর্মান্তরিত হচ্ছে তাদের আবার আদিবাসী সমাজে ফিরিয়ে আনার চেষ্টাও করা হয়। কেন্দ্রের কাছে তাঁর আবেদন, আশ্রম আরও ভালোভাবে চালাতে যদি কিছু আর্থিক সাহায্য পাওয়া যায় তবে আরও বেশি মানুষের সেবা করার সুযোগ পাবেন তিনি। গাজোল হাইস্কুল ময়দানে সংবর্ধনার পর আদিবাসীদের নাচের দল, কীর্তনের দল, ব্যান্ডপার্টি নিয়ে শুরু শোভাযাত্রা হয়। গাজোল শহর এলাকার বিভিন্ন রাস্তা ঘুরে শোভাযাত্রা রওনা দেয় কমলিদেবীর আশ্রম কোটালহাটির উদ্দেশে।