রেগুলেটেড মার্কেট বন্ধ থাকার সুযোগে শহরের অলিগলিতে অবৈধভাবে ব্যবসা চলছে

198

শিলিগুড়ি: সোমবার থেকে রেগুলেটেড মার্কেট পুরোপুরি বন্ধ হয়েছে। মাছের আড়ত বন্ধ হয়েছে শুক্রবার থেকে। এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে শহরের বিভিন্ন অলিগলিতে অবৈধভাবে ব্যবসা শুরু হয়েছে। ভোর হতেই মাছ বোঝাই ট্রাক নিয়ে শহরের অলিগলিতে ঢুকে পড়ছেন এক শ্রেণির আড়তদার। পাইকারদের ডেকে রাস্তায় সামগ্রী নামিয়ে চলছে দরদাম। সামাজিক দূরত্ব উঠছে লাটে।

বিষয়টি নিয়ে ক্ষুব্ধ সাধারণ মানুষ। অনেকে প্রতিবাদও জানিয়েছেন। দেবীডাঙ্গা, গান্ধি ময়দান, চম্পাসারির বিভিন্ন অলিগলি, পোকাইজোত এমনকি রেগুলেটেড মার্কেটের মূল গেটের সামনের অংশও এভাবে ব্যবসা চলছে বলে অভিযোগ। যদিও মহকুমাশাসক সুমন্ত সহায় বলেন, ‘আমরা বিষয়টি লক্ষ করেছি। আমরা অবৈধভাবে ব্যবসার বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নিচ্ছি।‘

- Advertisement -

শিলিগুড়ি রেগুলেটেড মার্কেট হোলসেল ফিশ মার্চেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সদস্য জয়প্রকাশ সিনহা বলেন, ‘বিষয়টি নিন্দনীয়। বর্তমান পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে মার্কেট বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এই পরিস্থিতিতে এধরণের কাজ মোটেও করা উচিত নয়।‘

অন্যদিকে, শুক্রবারই ফ্রুটস অ্যান্ড ভেজিটেবল কমপ্লেক্সের আড়তদারদের সোমবার থেকে আড়ত বন্ধ রাখার সিদ্ধান্তের কথা জানানো হয়েছিল। কিন্তু এদিন মাছের পাশাপাশি বেশ কয়েকজনকে ফল, সবজি ট্রাকে বোঝাই করে শহরের বিভিন্ন জায়গায় অবৈধভাবে বিক্রি করতে দেখা গিয়েছে।

শিলিগুড়ি ফ্রুটস অ্যান্ড ভেজিটেবল কমিশন এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সম্পাদক শিব কুমার বলেন, ‘শুক্রবার সকালে প্রত্যেক সদস্যকে নতুন করে মাল লোডের অর্ডার দিতে মানা করেছিলাম। নিষেধাজ্ঞা অমান্য করছেন তাঁরা। এভাবে সংক্রমণের সম্ভাবনা আরও বাড়িয়ে দিচ্ছেন তাঁরা। প্রশাসনের কাছে কড়া ব্যবস্থা নেওয়ার আর্জি জানাচ্ছি।‘

এবিষয়ে সংশ্লিষ্ট আড়তদাররা অবশ্য কোনো মন্তব্য করতে চাননি। গোটা বিষয়টি নিয়ে ক্ষুব্ধ শহরের মানুষ। শহরের বাসিন্দা অজয় দাস বলেন, ‘আসলে শিলিগুড়িতে এখন নিয়ম ভাঙাই নিয়ম হয়ে দাঁড়িয়েছে।‘

পুরনিগমের পরিবেশ বিভাগের বিদায়ী মেয়র পারিষদ তথা ৪৬ নম্বর ওয়ার্ডের কো-অর্ডিনেটর মুকুল সেনগুপ্ত বলেন, ‘যেখানেই এরকম দেখবেন প্রশাসনকে জানাবেন। প্রশাসন এদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেবে।‘