সবজি চাষে ঝুঁকছে বিরঘই অঞ্চলের বাসিন্দারা

209

দীপঙ্কর মিত্র, রায়গঞ্জ: এক সময় রায়গঞ্জ ব্লকের বিরঘই অঞ্চলের বাসিন্দাদের ধান, গম, পাট সহ বিভিন্ন অর্থকরী ফসল চাষ ছিল। সারা বছরই এই ফসলগুলি চাষবাস করে দিন যাপন করতেন।

বিশ্বায়নের ফলে সামাজিক ও সাংস্কৃতিক পরিমণ্ডল পরিবর্তনের ফলে সাধারণ মানুষের জীবনযাপনে অনেক পরিবর্তন এসেছে। মানুষের চাহিদা বেড়েছে। প্রভাব পড়েছে অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে। মানুষ তার চাহিদার দিকে খেয়াল রেখে বিভিন্ন অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে নিজেদের যুক্ত করছেন। তাই শুধু ধান বা গম নয়, বিভিন্ন সবজি চাষের দিকে ঝুঁকছে গ্রামবাসীরা।

- Advertisement -

একটা সময় এই অঞ্চলের মানুষ সারা বছর প্রচুর পরিমাণে ধান উৎপাদন করত। কিন্ত ধান চাষে সেভাবে লাভবান না হওয়ায় এবং হাতে নগদ টাকা না থাকায় সমস্যায় পড়তে হয় তাদের। সংসারের প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র, ছেলে মেয়েদের পড়াশোনা ও চিকিৎসার জন্য হাতে নগদ টাকার প্রয়োজন। সেই প্রয়োজন মেটানোর পাশাপাশি সারাবছর হাতে নগদ টাকার জন্য অঞ্চলের বাসিন্দারা সবজি চাষের দিকে ঝুঁকছে।

স্থানীয় বীরঘই গ্রাম পঞ্চায়েতের জয়নগর, পিপলান, সরাই, দেওকণ্ডা, শাকধুয়া, বসমনপাড়া, মহিষবাথান, পার্ধা, পোয়ালতোর গ্রামগলিতে একটা সময় প্রচুর পরিমাণে ধান, গম চাষ করা হলেও এখন প্রচুর পরিমাণে টাটকা সবজি চাষ করছেন বাসিন্দারা। জয়নগরের বাসিন্দা জিতেন মণ্ডল জানান, এই অঞ্চলে ধান বা গম চাষ লাভজনক হলেও তুলনামূলক সবজি চাষ বেশি লাভজনক। সেই সঙ্গে আমাদের নগদ টাকার প্রয়োজন। সবজি চাষ সারাবছর করা যায়, হাতে নগদ টাকা আসে। তাই জমির বড় অংশে আমরা শাক সবজি চাষ করে থাকি। তিনি আরও বলেন, সবজি চাষে জমির উর্বরতা যেমন বজায় থাকে ঠিক তেমনি শীতকালে নগদ অর্থ উপার্জন সম্ভব হয়। তিনবিঘা জমিতে এই মুহূর্তে ফুলকপি, আলু লাগিয়েছি।

অপর এক কৃষক প্রদীপ সরকার জানান, জমিতে এখন ফুলকপি, মটর শাক, মুলো প্রকৃতির চাষ করা হচ্ছে। নিচু জমি গুলিতে ধান ছাড়া অন্য কিছু চাষ করা সম্ভব নয়। কিন্তু উঁচু জমি গুলিতে এই অঞ্চলের প্রায় সকলেই সবজি চাষের দিকে ঝুঁকে পড়েছে। সবজি চাষে ক্ষতির সম্ভাবনা কম এবং নগদ অর্থ উপার্জন হয়।

রুপাহারের বাসিন্দা উত্তম দেবপাল জানান, এখানকার প্রায় প্রতিটি পরিবার সবজি চাষের উপর সবচেয়ে বেশি নির্ভরশীল। তবে নিচু জমিগুলোতে ধান চাষ করলেও উঁচু জমিতে ফুলকপি, বাঁধাকপি ও মুলোর চাষ করে থাকে। বর্তমানে রাসায়নিক সার ও কীটনাশকের দাম বৃদ্ধি হওয়ায় লাভ কমে আসলেও নগদ অর্থ উপার্জনের জন্য সবজি চাষের বিকল্প কিছু নেই। বিরঘই গ্রাম পঞ্চায়েতের উপপ্রধান নিলেশ্বর বর্মন জানান, এই অঞ্চলের অধিকাংশ মানুষ সবজি চাষের দিকে ঝুঁকছে। ধান বা গম চাষ করলেও গ্রামবাসীরা সবজি চাষের দিকে বেশি মনোযোগী। সবজি চাষ বেশি লাভজনক তো বটেই, সেইসঙ্গে সাধারণ মানুষের নগদ অর্থের চাহিদা মেটে।