মন্ত্রী হবেন পরেশ, আশায় মেখলিগঞ্জবাসী

253

মেখলিগঞ্জ: মেখলিগঞ্জ বিধানসভা কেন্দ্র থেকে এবার তৃণমূল কংগ্রেসের টিকিটে জয়ী হয়েছেন রাজ্যের প্রাক্তন খাদ্যমন্ত্রী পরেশচন্দ্র অধিকারী। এবারও পরেশবাবু মন্ত্রী হবেন এই আশায় রয়েছেন মেখলিগঞ্জ মহকুমার বাসিন্দারা।

তাঁদের বক্তব্য, রাজ্যের এক নম্বর মেখলিগঞ্জ বিধানসভা এলাকা থেকে পরেশবাবু মন্ত্রী হলে এলাকার উন্নয়নমূলক কাজ বেশি করে হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী এই ব্লকের বিভিন্ন প্রান্ত সম্পর্কে তাঁর ধারণা রয়েছে। পাশাপাশি চ্যাংরাবান্ধা উন্নয়ন পর্ষদের তরফেও পরেশবাবু এই এলাকার বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ করেছেন। এছাড়াও পর্ষদের চেয়ারম্যান থাকার দরুণ পরেশবাবুর কাছে বিভিন্ন দাবি ও উন্নয়নের কথা জানিয়েছেন স্থানীয়রা। সেসব অনেক দাবি এখনও পূরণ হয়নি। এই অবস্থায় পরেশবাবু মন্ত্রীসভায় গুরুত্বপূর্ণ দপ্তর পেলে স্বাভাবিকভাবেই মেখলিগঞ্জ মহকুমার বিভিন্ন সমস্যা মেটানো এবং উন্নয়নমূলক কাজ করতে বেশি সুবিধা হবে। স্থানীয়রা জানান, বামফ্রন্ট আমলে খাদ্য দপ্তরের মতো গুরুত্বপূর্ণ দপ্তরের মন্ত্রীর পদ সামলেছিলেন পরেশবাবু। তাই পরেশবাবু মন্ত্রী হলে প্রাক্তন মন্ত্রিত্বের অভিজ্ঞতা তাঁর কাজের ক্ষেত্রে প্লাস পয়েন্ট হবে বলে অনেকের ধারণা।

- Advertisement -

কোচবিহার জেলায় এবার শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস ৯টি আসনের মধ্যে দুটিতে জয়লাভ করেছে। এবারের বিধানসভা নির্বাচনে পরেশচন্দ্র অধিকারীর প্রাপ্ত ভোট ৯৯,৩৩৮। বিজেপির দধিরাম রায় পেয়েছেন ৮৪,৬৫৩টি ভোট। পরেশবাবু ১৪,৬৮৫ ভোটে জয়ী হয়েছেন। পরেশবাবুর জয়ে খুশি তার কর্মী-সমর্থকরা। গত বিধানসভা ভোটে এই কেন্দ্রে বামফ্রন্টের ফরওয়ার্ড ব্লক প্রার্থী হিসেবে বর্তমান তৃণমূলের এই পরেশচন্দ্র অধিকারী পেয়েছিলেন ৬৮,১৮৬টি ভোট। অন্যদিকে, তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী অর্ঘ্যবাবুর ঝুলিতে পড়েছিল ৭৪,৮২৩টি ভোট। অর্ঘ্যবাবু ৬,৬৩৭টি ভোটের ব্যবধানে জয়ী হয়ে বিধায়ক হয়েছিলেন। পরেশবাবু অবশ্য জানিয়েছেন, এই জয় তাঁর ব্যক্তিগত জয় নয়। এই জয় মানুষের জয়। সর্বদা মানুষের জন্য কাজ করা এবং মানুষের পাশে থাকার চেষ্টাই তাঁর অন্যতম লক্ষ্য।