লালা পরীক্ষার দাবিতে অনশনে কোয়ারান্টিন সেন্টারের আবাসিকরা

340

শামুকতলা: দ্রুত লালা পরীক্ষার দাবিতে আলিপুরদুয়ার-২ ব্লকের মহাকালগুরি গ্রাম পঞ্চায়েতের চেপানি হাইস্কুলের কোয়ারান্টিন সেন্টারে থাকা ৪৭ জন আবাসিক সোমবার সকালে অনশনে বসেন।

কোয়ারান্টিন সেন্টারে ১০ দিনের বেশি হয়ে গেলেও এখনও কারও লালা পরীক্ষা করা হয়নি বলে অভিযোগ তাঁদের। তাঁরা জানান, ১৪ দিন হয়ে গেলেও স্বাস্থ্য দপ্তর লালা পরীক্ষা না করলে তাঁরা বাড়ি যাবেন না। আলিপুরদুয়ার-২ ব্লকে রবিবার ৯ জনের করোনা পজিটিভ ধরা পড়ে। সোমবারও ব্লকে ৩ জনের করোনা পজিটিভ ধরা পড়ে। এরা সবাই কোয়ারান্টিন সেন্টার থেকে বাড়িতে চলে এসেছিল। এদের পরিবারকে এখন হোম আইসোলেশন করা হয়েছে।

- Advertisement -

এই খবরে পরিবারের কথা চিন্তা করে স্বাভাবিকভাবে আতঙ্কে রয়েছেন কোয়ারান্টিন সেন্টারের আবাসিকরা। তাঁরা ভয়ে আছেন ১৪ দিন পর বাড়ি গেলে পরিবার যাতে না আক্রান্ত হয়ে যায়। তাঁরা জানান, পরীক্ষা হলেই তাঁরা একবারে বাড়ি যাবেন। কিন্তু স্বাস্থ্য দপ্তর এখনও লালা পরীক্ষা না করায় বাধ্য হয়ে সোমবার অনশনে বসেন তাঁরা।

সকাল থেকে বেলা দুটো পর্যন্ত তাঁরা কোনও রকম খাদ্য গ্রহণ করেননি বলে জানান তাঁরা। এমনকি এক গ্লাস জলও খাননি। বেলা দুটোর সময় অনশনের খবর পেয়ে ব্লক সমষ্টি উন্নয়ন আধিকারিক শ্রীনিবাস পাটিল, সমষ্টি স্বাস্থ্য আধিকারিক মানু এক্কা, শামুকতলা থানার ভারপ্রাপ্ত আধিকারিক বিরাজ মুখার্জী, আলিপুরদুয়ার জেলার ডেপুটি ডিএম ও জেলার স্বাস্থ্য দপ্তরের এক আধিকারিকে সেন্টারে যান।

তাঁরা আশ্বাস দেন, এদিন থেকেই তাঁদের লালার নমুনা সংগ্রহ করা হবে। এরপর আবাসিকরা অনশন ভঙ্গ করেন। ব্লক স্বাস্থ্য দপ্তর থেকে বলা হয়, সোমবারই মহাকালগুরি গ্রাম পঞ্চায়েতের চেপানি হাইস্কুলের সেন্টারে থাকা ৪৭ জনের মধ্যে চারজনের লালারস সংগ্রহ করা হবে। মঙ্গলবার আরও ১০ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হবে। পরবর্তী পর্যায়ে প্রতিদিন ১০ জন করে লালা সংগ্রহ করবে স্বাস্থ্য দপ্তরের কর্মীরা।

অপরদিকে এই প্রতিনিধি দল আজ মহাকালগুরি মিশন হাইস্কুলের কোয়ারান্টিন সেন্টার পরিদর্শন করেন। সেখানে দায়িত্বে থাকা মহাকালগুরি হাইস্কুলের শিক্ষক পঙ্কজ বসুমাতার সঙ্গে তাঁরা কথা বলেন এবং আশ্বাস দেন আগামীকাল থেকে মহাকালগুরি হাইস্কুলে থাকা আবাসিকদেরও লালা পরীক্ষার ব্যবস্থা করা হবে।

বিষয়টি নিয়ে রাজনীতির রং লেগে যায় আজকে। আলিপুরদুয়ার-২ ব্লকের পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি অনুপ দাস বলেন, স্বাস্থ্য দপ্তর আমাদের বলেছেন সঠিক সময় সবার লালা পরীক্ষা হবে। আজ কিছু পরীক্ষা হয়েছেও। কালকেও পরীক্ষা হবে। বিজেপি রাজনৈতিক কারণে বিষয়টিতে উস্কানি দিচ্ছে। আলিপুরদুয়ার বিজেপির জেলা সম্পাদক অর্জুন দেবনাথ বলেন, সরকার বিরোধী কথা বললেই বিজেপির তকমা লেগে যাচ্ছে। তাহলে বলব এই মুহূর্তে পুরো পশ্চিমবঙ্গবাসীই বিজেপি হয়ে গিয়েছে। করোনা সামলাতে রাজ্য সরকার পুরোপুরি ব্যর্থ।