বিশ্বজিৎ সাহা, মাথাভাঙ্গা, ১৩ জুলাই : মাথাভাঙ্গা শহরে দীর্ঘদিন আগে মানসাই ও সুটুঙ্গা নদীর সঙ্গমস্থলে চরের উপর অস্থায়ী ডাম্পিং গ্রাউন্ড তৈরি করেছে পুরসভা। কিন্তু এখনও পর্যন্ত পুরসভা সেখানে কঠিন বর্জ্য নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করতে পারেনি। বর্ষার সময় চরে ফেলে রাখা বর্জ্য নদীর স্রোতে ভেসে চলে যাচ্ছে। এর ফলে দূষিত হচ্ছে মাথাভাঙ্গার সুটুঙ্গা ও মানসাই নদী। বছরের পর বছর ধরে এই সমস্যা চলে এলেও তা মেটাতে এখনও ব্যবস্থা নেয়নি পুরসভা। পরিবেশপ্রেমীদের অভিযোগ, পুরসভার উদ্দেশ্যই হল শহরের আবর্জনা নদীর জলে ভাসিয়ে দেওয়া। আর সেই কারণেই স্থায়ী ডাম্পিং গ্রাউন্ডের বদলে নদীচরে অস্থায়ী ডাম্পিং গ্রাউন্ড তৈরি করা হয়েছে। যদিও এই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন মাথাভাঙ্গা পুরসভার চেয়ারম্যান লক্ষপতি প্রামাণিক।

বর্তমান সময়ে পরিবেশপ্রেমীদের আশঙ্কার অন্যতম কারণ হল নির্বিচারে নদী ও নদীর জল দূষিত হওয়া। বিশেষত, শহরাঞ্চলে নদীদূষণের মাত্রা অনেক বেশি। মাথাভাঙ্গাতেও নির্বিচারে নদীদূষণ হচ্ছে। তবে পরিবেশপ্রেমীদের অভিযোগ, নাগরিকদের অসচেতনতার পাশাপাশি মাথাভাঙ্গায় নদীদূষণের জন্য পুরসভা অনেকটাই দায়ী। অভিযোগ, পরিবেশ ও পুর আইনকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে দীর্ঘদিন ধরে নদীর চরে আবর্জনা ফেলার কারণে মাথাভাঙ্গায় নদীদূষণ বাড়ছে। প্রায় তিন দশকের বেশি সময় আগে ২ ও ৫ নম্বর ওয়ার্ডের সীমানাবর্তী মানসাই ও সুটুঙ্গা নদীর সঙ্গমস্থলে নদীর চরে অস্থায়ী ডাম্পিং গ্রাউন্ড তৈরি হয়েছিল। কিন্তু আজ পর্যন্ত সেখানে কঠিন বর্জ্য নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করে উঠতে পারেনি পুর কর্তৃপক্ষ। আর এখন বর্ষা শুরু হতেই নদীর স্রোত চর ছাপিয়ে সেই আবর্জনা ভাসিয়ে নিয়ে যাচ্ছে।

পরিবেশপ্রেমী সংগঠন গ্লোবাল এনভায়রনমেন্ট কনজারভেটিভ অর্গানাইজেশনের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক তাপস বর্মন বলেন, শহরের বর্জ্য নদীতে ভাসিয়ে দেওয়ার উদ্দেশ্যে নদীর চরে জমা করার ঘটনা অত্যন্ত নিন্দনীয়। অবিলম্বে নদীর চরে পুরসভার তরফে আবর্জনা জমা করা বন্ধের দাবি জানাচ্ছি। একই অভিযোগ করেন ভারতীয় বিজ্ঞান ও যুক্তিবাদী সমিতির মাথাভাঙ্গা শাখার সম্পাদক তন্ময় চক্রবর্তী।

যদিও মাথাভাঙ্গা পুরসভার চেয়ারম্যান লক্ষপতি প্রামাণিক বলেন, নদীতে ভাসিয়ে দেওয়ার উদ্দেশ্যে চরে আবর্জনা ফেলা হচ্ছে না। আগের পুরবোর্ডের আমল থেকেই মাথাভাঙ্গা শহরের আবর্জনা ওই জায়গায় ফেলা হচ্ছে। পুরসভার স্থায়ী ডাম্পিং গ্রাউন্ডের জন্য পর্যাপ্ত জায়গা না পাওয়ায় তা বাস্তবায়িত করা সম্ভব হচ্ছে না। কঠিন বর্জ্য নিষ্কাশন চালুর পরিকল্পনাও আমাদের রয়েছে।