বর্ধমান, ৭ নভেম্বরঃ পথ দুর্ঘটনায় মৃত্যু হল দু’জনের। আহত ৪৭। বৃহস্পতিবার দুর্ঘটনাটি ঘটে পূর্ব বর্ধমানের কালনার ধাত্রীগ্রাম সংলগ্ন আটঘরিয়া সিমলন পঞ্চায়েতের সোন্দলপুর এলাকায়। আহতদের কালনা হাসপাতালে ভরতি করা হয়েছে। তাঁদের মধ্যে বেশ কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। কালনা হাসপাতালের সুপার চিকিৎসক কৃষ্ণচন্দ্র বরাই জানান, দুর্ঘটনায় আহত ৪৭ জন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। দু’জন ঘটনাস্থলে মারা গিয়েছে। আহতদের মধ্যে বেশকয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, এদিন একটি যাত্রীবাহীবাস গুসকরা থেকে কালনার দিকে যাচ্ছিল। ধাত্রীগ্রামের কাছে দুই বাইক আরোহী বাসের সামনে চলে আসায় বাইক আরোহীদের বাঁচাতে গিয়ে বাসের চালক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তায় উলটে যায়। বাসের ধাক্কায় দুই বাইক আরোহী রাস্তার পাশে নয়ানজুলিতে পড়ে যান।  ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় তাঁদের। প্রাথমিকভাবে পুলিশ জানতে পারে, ওই দুই বাইক আরোহী নদীয়ার শান্তিপুরের বাসিন্দা। এদিন স্থানীয়রা প্রথমে উদ্ধারকাজে হাত লাগান। পরে কালনা থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে আহতদের কালনা হাসপাতালে পাঠায়। এদিন দুর্ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনা ছড়ায়। আহত বাসযাত্রীদের পরিবারের লোক এবং স্থানীয়রা বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন। পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনলেও পুনরায় কালনা মহকুমা হাসপাতাল ও সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের সামনে বিক্ষোভ দেখান তাঁরা। হাসপাতালের সামনের রাস্তায় টায়ায় জ্বালিয়ে ও গাছের গুঁড়ি ফেলে পথ অবরোধ করা হয়।

পুড়িয়ে দেওয়া হয় বাইক। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় বিশাল পুলিশবাহিনী সহ র‍্যাফ।

বিক্ষোভকারীদের অভিযোগ, রাস্তায় থাকা সিভিক ভলান্টিয়াররা বাইক আরোহীদের তাড়া করেছিল। সিভিক ভলান্টিয়ারের তাড়া দেওয়ায় বাইকে করে দ্রুত পালাতে গেলে বাইক আরোহীরা চলন্ত বাসের সামনে পড়ে যান, যার ফলে দুর্ঘটনাটি ঘটে। দুর্ঘটনার পর কালনার একাধিক জায়গায় দফায় দফায় হওয়া পথ অবরোধ, বিক্ষোভের জেরে এদিন গুসকরা কলনা রোড সহ অন্যান্য রাস্তায় যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। দুর্ঘটনাগ্রস্ত দুটি গাড়িকে আটক করেছে পুলিশ। ঘটনার তদন্ত চলছে।