মাদারিহাট : মধ্য খয়েরবাড়িতে এক দশকেও রাস্তা সংস্কার হয়নি। তিতিবিরক্ত গ্রামবাসীরা তাই আন্দোলনের হুমকি দিয়েছেন। গ্রামবাসীদের কাছ থেকে জানা গিয়েছে, ব্লক এবং জেলা প্রশাসনকে বারবার জানিয়েও কাজ হয়নি। প্রায় এক দশকে রাস্তা সংস্কার না হওয়ায়  প্রবল সমস্যায় পড়েছেন চার হাজার সাধারণ মানুষ। আলিপুরদুয়ার জেলার ছেঁকামারি চৌপথি থেকে খয়েরবাড়ি চৌপথি পর্যন্ত রাস্তার অর্ধেক নির্মাণ হলেও বাকি অর্ধেক, প্রায় তিন কিলোমিটার রাস্তা, মেরামত না হওয়ায় ক্ষোভ বাড়ছে বাসিন্দাদের মধ্যে। জেলা পরিষদের সভাধিপতি শীলা দাস সরকার বলেছেন, ‘ফান্ডের সমস্যা রয়েছে। ফান্ড এলেই রাস্তা মেরামত করা হবে।’

এক দশক আগে শেষবারের মতো জেলাপরিষদের এই রাস্তা সংস্কারের কাজ হয়েছিল। রাস্তার পিচের চাদর উঠে গিয়েছে বেশ কয়েক বছর আগেই। জল জমে বড়ো বড়ো গর্ত তৈরি হয়েছে বর্ষার সময়। স্থানীয় পঞ্চায়েত সদস্যের আবেদনে পঞ্চায়েত প্রধান আর্থ মুভার দিয়ে গর্ত সমান করে চলাচলের যোগ্য করে তোলার ব্যবস্থা করলেও ফের রাস্তার কঙ্কাল চেহারা বেরিয়ে এসেছে। এখন রাস্তার হাল এতটাই খারাপ যে টোটোচালকরা এই রাস্তায় আর আসতে চাইছেন না। ফলে গ্রামের মানুষের যাতায়াতে সমস্যা হচ্ছে।

স্থানীয় বাসিন্দা নূর আলম বলেন, ‘১৪/৭২ এবং ১৪/৭৩ দুটি অংশের প্রায় চার হাজারের বাসিন্দা এই পথ দিয়ে মাদারিহাট  বীরপাড়া যাতায়াত করেন। সব চেয়ে বেশি সমস্যা হয় কোনো রোগীকে হাসপাতাল নিতে হলে। এই পথে ছেকামারি দিয়ে বেরিয়ে জাতীয় সড়ক ধরে সোজা বীরপাড়া যাওয়া যায়। কিন্তু রাস্তার অবস্থা খুব খারাপ হওয়ায় কেউ ওই পথে বীরপাড়ায় যেতে চান না।’

অপর বাসিন্দা সবুর মিঞা বলেন, ‘আমরা স্থানীয় জেলাপরিষদের সদস্যাকে অনেকবার জানিয়েছি। কিন্তু রাস্তা নিয়ে কোনো ব্যবস্থা নেননি তিনি। শেষবার ভোটে জিতে এখনও পর্যন্ত একবারের জন্য এই রাস্তা দেখতে আসোনি। ছেকামারি চৌপথি থেকে খয়েরবাড়ি চৌপথি সংলগ্ন কৃষ্ণ মন্দির পর্যন্ত রাস্তার সংস্কারের কথা থাকলেও তা হয়নি।’ বুলবুল ইসলাম নামে এক স্থানীয় বাসিন্দা বলেন, ‘জামতলা হাটে এই পথেই রাঙালিবাজনা, ছেকামারি থেকে ব্যবসায়ীরা মালপত্র নিয়ে আসেন।  রাস্তা খারাপ হওয়ায় তাঁরাও সমস্যায় পড়ছেন।’

স্থানীয় পঞ্চায়েত সদস্য কিশোর মুন্ডা বলেন, ‘দশ বছর পর হলেও সম্পূর্ন রাস্তাটি মেরামত হয়নি। আমরা জেলাপরিষদকে অনেকবার জানিয়েছি। গ্রামবাসীরা আন্দোলনে নামবেন।’

মাদারিহাট পঞ্চায়েত প্রধান মামনি বসুমাতা শৈব বলেন, ‘মাদারিহাটের সব রাস্তার কথা জেলা পরিষদে জানানো রয়েছে। তারাই বলতে পারবে কবে রাস্তা সংস্কার হবে।’

ছবি- : এই রাস্তা নিয়েই ক্ষোভ মধ্য খয়েরবাড়িতে।

তথ্য ও ছবি- বিপ্লব দাস