পাকা রাস্তা একমাসেই ভেঙে যাচ্ছে

জগন্নাথ রায়, ময়নাগুড়ি : ময়নাগুড়ি ব্লকের চূড়াভাণ্ডার গ্রাম পঞ্চায়েতের চর চূড়াভাণ্ডার বুথে একটি পাকা রাস্তা তৈরিতে নিম্নমানের কাজের অভিযোগ তুলে ওই এলাকার স্থানীয় মানুষ ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। গ্রাম পঞ্চায়েতের তরফে রাস্তার ক্ষতিগ্রস্ত জায়গায়গুলি পুনরায় ঠিক করে দেওয়ার আশ্বাস দেওয়া হয়েছে।

স্থানীয়দের অভিযোগ, রাস্তায় পিচ ঢালার এক মাসও হয়নি। তার মধ্যে রাস্তার বিভিন্ন জায়গা থেকে পিচ ওঠা শুরু হয়েছে। রাস্তার বিভিন্ন অংশে পিচ ফুঁড়ে ঘাস বেরিয়ে আসছে। সম্প্রতি পাথর বোঝাই একটি ডাম্পার ওই রাস্তা দিয়ে ঢোকায় রাস্তার বিভিন্ন অংশে বসে গিয়ে ফাটল দেখা দিয়েছে। এছাড়াও দুটি জায়গায় রাস্তা বসে গিয়ে হিউমপাইপ ভেঙে গিয়েছে। ধারাইকুড়ি নদী সংলগ্ন একটি জমিতে রাস্তার পাশে বোল্ডারের গাঁথুনি দেওয়ার কাজ শেষ হয়েছে গত বুধবার। সেই গাঁথুনির ক্ষেত্রেও পর্যপ্ত সিমেন্ট নেই এবং নিম্নমানের কাজ হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন স্থানীয়রা। স্থানীয় বাসিন্দা সুনীল রায় বলেন, রাস্তার কাজ খুবই খারাপ হয়েছে। গার্ডওয়ালের যে গাঁথুনি দেওয়া হয়েছে সেই কাজেও গাফিলতি আছে। এই কাজের তদন্ত হওয়া দরকার। আর এক বাসিন্দা কেশব রায় বলেন, যেখানে যেখানে রাস্তার কাজ নিম্নমানের হয়েছে সেখানে সেখানে পুনরায় কাজ করতে হবে।

- Advertisement -

বাসিন্দা মনখুশি রায় বলেন, রাস্তা তৈরির এক মাসের মধ্যে রাস্তা নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। অনেক জায়গায় রাস্তার পিচ ফুঁড়ে ঘাস বের হচ্ছে। বাসিন্দা জয়দেব বিশ্বাস বলেন, ইঞ্জিনিয়ার রাস্তা দেখতে এলে তাঁকে রাস্তার নিম্নমানের কাজের বিষয়ে জানাই। কিন্তু কোনও কাজ হয়নি। স্থানীয় পঞ্চায়েত সদস্য রেখা রায় বলেন, ওই রাস্তার বরাতপ্রাপ্ত ঠিকাদারের সঙ্গে এই বিষয়ে কথা হয়েছে। রাস্তা ক্ষতিগ্রস্ত অংশগুলির কাজ পুনরায় করা হবে কথা হয়েছে। এই বিষয়ে চূড়াভাণ্ডার গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান কাকলি বৈদ্যকে ফোন করা হলেও তিনি ফোন ধরেননি। ওই রাস্তার ইঞ্জিনিয়ার নারায়ণ সরকার বলেন, রাস্তাটির কাজ এখনও চলছে। রাস্তা তৈরির সময় ভারী বৃষ্টির কারণে এবং ওই রাস্তা দিয়ে প্রচুর গবাদিপশু চলাচলের জন্য রাস্তার কিছু অংশের ক্ষতি হয়েছে। রাস্তার ক্ষতিগ্রস্ত অংশগুলি আমি দেখে এসেছি। সেগুলির কাজ করা হবে।