দিল্লি ফেরত শ্রমিকদের কোয়ারান্টিনে পাঠানোর দাবিতে পথ অবরোধ

244

রাজীব বসাক, তুফানগঞ্জ: পরিযায়ী শ্রমিকদের কোয়ারান্টিন সেন্টারে পাঠানোর দাবিতে পথ অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখালেন স্থানীয়রা। ঘটনাটি ঘটেছে, নাটাবাড়ি-১ গ্রাম পঞ্চায়েতের হাসপাতাল মোড়ের নাটাবাড়ি-আলিপুরদুয়ার রাজ্য সড়কে। এই ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে। বিক্ষোভের খবর পেয়ে ব্যাবস্থা গ্রহনের আশ্বাস দিয়েছে তুফানগঞ্জ-১ ব্লক প্রশাসন। সেই অনুযায়ী শ্রমিকদের সেখান থেকে স্বাস্থ্য পরিক্ষার জন্য নিয়ে আসা হচ্ছে মারুগঞ্জ প্রাথমিক স্বাস্থ্য কেন্দ্রে। এখানে প্রাথমিক চিকিৎসার পর ডাক্তার নির্দেশ দিলে তাদের কোয়ারান্টিন সেন্টারে পাঠানো হবে। ডাক্তার প্রয়োজনে তাদের হোম কোয়ারান্টিন এর নির্দেশও দিতে পারেন।

জানা গিয়েছে, রবিবার নাটাবাড়ি ১ গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার ১৪ জন পরিযায়ী শ্রমিক গভীর রাতে চুপিসারে দিল্লি থেকে বাড়িতে ফেরেন। ভোরের আলো ফুটতেই বিষয়টি নিয়ে শোরগোল শুরু হয় নাটাবাড়ি বাজারে। শেষে স্থানীয়রা একত্রিত হয়ে পথ অবরোধ করার সিদ্ধান্ত  নেয়। যেমন ভাবা তেমন কাজ। স্থানীয়দের যৌথ উদ্যোগে শুরু হয় অবরোধ। টিন ও বাশ ফেলে দেওয়া হয় রাস্তায়। এই খবর পৌছায় তুফানগঞ্জ-১ ব্লকের সহকারি সমষ্টি উন্নয়ন আধিকারিক অরুন কুমার বর্মনের কাছে। খবর পেয়েই শ্রমিকদের স্বাস্থ্য পরীক্ষার ব্যবস্থা করেন তিনি। শ্রমিকদের স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য তাদের মারুগঞ্জ প্রাথমিক স্বাস্থ্য কেন্দ্রে আনা হবে। এরপর ডাক্তারের নির্দেশে পরবর্তী পদক্ষেপ নেবে প্রশাসন।

- Advertisement -

এই বিষয়ে স্থানীয় বাসিন্দা কমল বর্মন, কৌশিক দাস জানান, রবিবার রাতে দিল্লি থেকে ফেরেন ১৪ জন শ্রমিক। আমরা খোজ নিয়ে জানতে পারি তাদের কোন পরীক্ষাই করা হয়নি। এই খবর চাওর হতেই শ্রমিকদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা এবং কোয়ারান্টিন সেন্টারে পাঠানোর দাবিতে পথ অবরোধ করি। এখনও পর্যন্ত কোন সরকারী প্রতিনিধি না আসায় অবরোধ চলছে। শ্রমিকদের আমাদের এলাকা থেকে নিয়ে গিয়ে স্বাস্থ্যপরীক্ষা এবং কোয়ারান্টিন সেন্টারে রাখার ব্যাবস্থা করলেই আমরা অবরোধ তুলে নেব।

তুফানগঞ্জ-১ ব্লক প্রশাসনের এক আধিকারিক জানান, শ্রমিকরা আলিপুর দুয়ারে শ্রমিক ট্রেন থেকে নেমে বাড়িতে ফিরে আসেন। আলিপুরদুয়ার থেকে আমাদের এই বিষয়ে অবগত করা হয়নি। যে কারনেই শ্রমিকরা সরাসরি বাড়িতে চলে যান। এদিন সকালেই বিক্ষোভ শুরু হওয়ার পর পুলিশ গিয়ে অবরোধকারীদের সঙ্গে কথা বলে। দাবি মেনে তাদের স্বাস্থ্য পরীক্ষার ব্যবস্থা করায় অবরোধ তুলে নেয় স্থানীয়রা।