ফুলবাড়িতে সোনার দোকানে ডাকাতি

161

ফুলবাড়ি (রাজগঞ্জ): দুঃসাহসিক ডাকাতির ঘটনা ঘটল ফুলবাড়িতে। রবিবার গভীর রাতে জনা দশেকের এক ডাকাত দল বাজারের চৌকিদারকে বেঁধে রেখে সোনার দোকানে ডাকাতি করে পালিয়ে যায় বলে অভিযোগ। প্রায় ৮০-৯০ হাজার টাকার গয়না চুরি সহ সবমিলিয়ে দুই লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে জানিয়েছেন দোকান মালিক রণদীপ মণ্ডল। ডাকাতদলকে গ্রেপ্তারের পাশাপাশি পুলিশের টহলদারি বাড়ানোর দাবি জানিয়েছেন দোকান মালিক সহ বাজার কমিটি।

দোকানের মালিক রণদীপ মণ্ডল বলেন, ‘রাত সাড়ে ৩টা নাগাদ বাজারের এক চৌকিদার আমাকে ফোন করে ডাকাতির ঘটনাটি জানান। ততক্ষণে ঘটনাস্থলে পৌঁছে যায় নিউ জলপাইগুড়ি থানার টহলদারি পুলিশ ভ্যান। সঙ্গে সঙ্গে দোকানে পৌঁছে গিয়ে দেখি দোকানের শাটার ভাঙা। শোকেসে থাকা যাবতীয় গয়না সহ অন্যান্য সামগ্রী খোয়া গিয়েছে।’ তিনি বলেন, ‘দোকানের সামনের সিসিটিভি ক্যামেরায় দেখা গিয়েছে, কয়েকজন দুষ্কৃতী শাটার ভাঙছে। তারপর দোকানের মধ্যে ঢুকে ভিতরে থাকা সিসিটিভি ক্যামেরার মুখ ঘুরিয়ে দেওয়ায় আর কাউকে দেখা যায়নি। রাতে বাজারে পাহারার জন্য দুজন চৌকিদার রয়েছেন। তারা টের পেয়ে যাওয়ায় নাসির মহম্মদ (৫৫) নামে এক চৌকিদারকে বেঁধে রাখে। অন্য চৌকিদার নজরুল ইসলাম (৩২) পালিয়ে প্রাণে বাঁচেন।
মুখ ঢাকা ওই ডাকাতদলটি বেশ কিছুক্ষণ ধরে অপারেশন চালায়। দোকানের সিন্দুক কাটার চেষ্টা করলেও পারেনি। রণদীপবাবু বলেন, ‘আপাতত হিসেবে বোঝা যাচ্ছে, ৮০-৯০ হাজার টাকার গয়না চুরি হয়েছে। সিন্দুকের ক্ষতি সহ দোকানের ক্ষতির পরিমাণ প্রায় দু’লক্ষ টাকা।’

- Advertisement -

চৌকিদার নাসির মহম্মদ বলেন, ‘মাথায় পাগড়ী ও মুখ ঢাকা ওই ডাকাত দলের কাছে আগ্নেয়াস্ত্র ও ধারালো অস্ত্র ছিল। আগ্নেয়াস্ত্র দেখিয়ে হুমকি দিয়ে আমাকে বেঁধে রাখে। অন্য চৌকিদার ডাকাত দলের ধাওয়া খেয়ে পালিয়ে প্রাণে বাঁচেন। প্রায় আধ ঘণ্টা অপারেশন চালিয়ে ডাকাতদলটি চলে যায়।’

ফুলবাড়ি বাজার কমিটির সম্পাদক মহম্মদ ইব্রাহিম বলেন, ‘কয়েক মাস আগে ফুলবাড়ি বাজার এলাকায় কয়েকটি চুরি হয়েছে। জনবহুল এলাকায় এই বাজারে এভাবে চুরির ঘটনায় আমরা আতঙ্কিত। তাই পুলিশি টহলদারি বাড়ানোর দাবি জানাচ্ছি।’

শিলিগুড়ি পুলিশ কমিশনারেটের অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (পূর্ব) সুরেন্দ্র কুমার বলেন, ‘ফুলবাড়ির সোনার দোকানে ডাকাতির ঘটনার তদন্ত চলছে। কিছু সূত্র পাওয়া গিয়েছে। খুব তাড়াতাড়ি দুষ্কৃতীরা ধরা পড়বে বলে আমরা আশাবাদী।’